সংসদ নির্বাচন গণতন্ত্রকে সুসংহত করেছে: স্বাগত বক্তব্যে স্পিকার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : নতুনভাবে দায়িত্ব নেয়ার পর স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট দেশের গণতন্ত্রকে সুসংহত করেছে।

বুধবার (৩০ জানুয়ারি) টানা তৃতীয়বারের মত স্পিকার নির্বাচিত হওয়ার পর স্বাগত বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে বিকেল ৩টায় একাদশ জাতীয় সংসদের যাত্রা শুরু হয়। ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। এরপর স্পিকার নির্বাচিত হওয়ার পর সংসদের বৈঠক ২০ মিনিটের বিরতি দেয়া হয়। এ সময় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ স্পিকারকে শপথ বাক্য পাঠ করান। এরপর সভাপতির আসনে বসে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এরপর ডেপুটি স্পিকার হিসেবে শপথ নেন অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া।

স্পিকার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, ‘আমাকে পুনরায় নির্বাচিত করায় বিশেষভাবে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই আমার নির্বাচনী এলাকা রংপুর-৬ এর সমগ্র পীরগঞ্জবাসীদের। যারা মূল্যবান ভোটের মাধ্যমে আমাকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত করেছেন। তাদের জন্যই আমি একাদশ জাতীয় সংসদের স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত হয়েছি। পীরগঞ্জের সকল মা বোন, তরুণ ভাই-বোনদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।

তিনি বলেন, জনগণের আশা-আকাঙক্ষার বাস্তবায়ন সংসদীয় গণতন্ত্রকে বিকশিত করে। আইন প্রণয়নের পাশাপাশি জনগণের জীবন মানোন্নয়নের সার্বিক কল্যাণ সাধনের প্রত্যাশা পূরণে গঠনমূলক আলোচনা-সমালোচনা মধ্য দিয়ে সরকারের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় একাদশ জাতীয় সংসদ কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। সংসদীয় গণতন্ত্রে সংবিধান ও সংসদের কার্যপ্রণালী বিধি গণতন্ত্রকে সুসংহত করে। পৃথিবীর সব পার্লামেন্টারি কনভেনশনে যেসব নীতিমালা আছে, সেগুলো আমরা মেনে চলতে চাই। সঙ্গে সঙ্গে এমন একটি পার্লামেন্টারি প্রসিডিউর ফলো করতে পারি যাতে সারা বিশ্ব আমাদের কাছে শিক্ষা নিতে পারে।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ সমগ্র বিশ্বে উন্নয়নের বিস্ময়। এ নির্বাচনে দেশের জনগণ আমাদের উপর যে আস্থা ও গুরুদায়িত্ব অর্পণ করেছে- তা যথাযথভাবে পালন করাই হোক আমাদের আজকের প্রত্যয়। গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রার মধ্য দিয়ে উন্নয়নের লক্ষ্যে জাতীয় সংসদ কার্যকর ভূমিকা রাখবে এই হোক আমাদের সকলের সম্মিলিত কাজ।