‘ষোড়শ সংশোধনী বাতিল রায়ের কারণে সাংবিধানিক সমস্যা হবে না’ : আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বর্তমান সরকার আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের কারণে সাংবিধানিক কোনো সমস্যা হবে না।
রবিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) আয়োজিত মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
আনিসুল হক বলেন, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের ৭৯৯ পৃষ্ঠার রায়ের কপি পরীক্ষা-নীরিক্ষার মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করে তা রিভিউর জন্য আবেদন করা যেতে পারে। এই রায়ে কিছু কিছু শব্দে ইতিহাস বিকৃতি হয়েছে। এটা খতিয়ে দেখার অবকাশও আছে বলে মন্ত্রী জানান।
প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর সাক্ষাতের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, যেকোনো সমস্যা দেখা দিলে আলোচনা করা যেতে পারে। আমি আলোচনার বিষয়বস্তু সম্পর্কে কিছু জানি না। তবে এটা ঠিক যে বিচার বিভাগ, নির্বাহী বিভাগ এবং আইন বিভাগের মধ্য আলাপ-আলোচনা চলতে পারে। দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে আলাপ-আলোচনা করেই সমস্যার সমাধানের পথ বের করা যেতে পারে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকার গণতন্ত্রে বিশ্বাসী, গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতায় বিশ্বাসী এবং বিচার বিভাগের স্বাধীনতায় শুধু বিশ্বাসী না, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা রক্ষায় এবং উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নে বদ্ধপরিকর।
মন্ত্রী সাংবাদিকদের ওয়েজ বোর্ড সমস্যার সমাধানে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করার কথা উল্লেখ করে বলেন, সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বেড়েছে তাই সাংবাদিকদেরও বেতন কাঠামো ঠিক করা উচিত।
মন্ত্রী আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা প্রসঙ্গে বলেন, সাইবার ক্রাইম রোধে এই আইনটি কার্যকর থাকলেও সাংবাদিকদের ক্ষেত্রে তা প্রয়োগ যাতে না হয় তার জন্যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলাটি চলছে এবং অনেক অগ্রগতি হয়েছে। সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যা মামলাটি তদন্তাধীন কঠিন মামলার মধ্যে একটি। আশা করি শিগগিরই এই মামলার তদন্ত কাজ শেষ হবে। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আসামিদের দেশে ফিরিয়ে আনতে যুক্তরাজ্য ও কানাডার সাথে আইনি প্রক্রিয়ার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা অব্যাহত আছে বলে আইন মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান।