শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজের ডিগ্রি পর্যায়ের শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন

মান্না দে, ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজটি খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা এবং বাগেরহাট জেলার রামপাল ও ফকিরহাট উপজেলার শুভদিয়া ইউনিয়নে পশুর নদীর অববাহিকায় ভোলা নদীর তীরে ২০০০ খ্রিষ্টাব্দে প্রায় ৭.৫০ একর ভ’মির উপর প্রতিষ্ঠা লাভ করে। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে কলেজটি অত্র এলাকার শিক্ষাবিস্তারের ক্ষেত্রে ব্যাপক ভ’মিকা রেখে চলেছে। সহশ্রাধিক শিক্ষার্থী বর্তমানে অধ্যয়নরত কলেজটিতে। কলেজের ইন নং-১১৪৯২৪। উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে কলেজটি এমপিও ভুক্ত হয় ২০০৪ সালে,এমপিও কোড- ৫৯০৩০৫৩১০১। এলাকার গন মানুষের দাবীর প্রেক্ষিতে কলেজ গভর্ণিং বডির ২১/০৬/২০০৬ তারিখের ৪৭তম সভায় সর্বসম্মত ভাবে কলেজে ডিগ্রি কোর্স চালু করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জাতীয় সংসদ সদস্য জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীন ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় গত ২০০৯-২০১০ শিক্ষাবর্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যলয়ের পত্র স্মারক নং-০৭(খু- ৯৮০)জাতীঃ বিঃ/কঃ পঃ/১৪৩৯ তাং-৩১/০৩/২০১০ ডিগ্রি পর্যায়ে অধিভুক্তি পাওয়া যায়। বর্তমানে ডিগ্রি পর্যায়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ৩৬১ জন। পাসের হার ধারাবাহিক ভাবে ৮০% এর উর্দ্ধে। কলেজ সংলগ্ন এলাকায় খোজ নিয়ে জানা যায় এই কলেজকে কেন্দ্র করেই এই এলাকার ব্যাপক শিক্ষার বিস্তার ঘটেছে।আজ প্রতি বাড়িতে ডিগ্রি পাস ছেলে মেয়ে। জনগনের দাবী কলেজ না থাকলে এই এলাকার মেয়েদের শিক্ষা অন্ধকারেই খেকে যেত, কারন এসএসসি পাসের পর মেয়েদের পড়া শুনাতো দুরে থাক বাল্য বিয়ে ছাড়া কোন উপায় আমাদের ছিল না।তাছাড়া এলাকার ছেলে মেয়েরা শিক্ষিত হওয়ার পর এই এলাকা থেকে বিদায় নিয়েছে সন্ত্রাস, মারামারি ও খুন খারাবি,যা এক সময় ছিল নিত্যদিনের সঙ্গী।পাশাপশি ইতোমধ্যে অনেক ছেলে মেয়ে ডিগ্রি পাস করে চাকুরি জীবনে প্রবেশ করেছে, বিশেস করে এখন প্রচুর মেয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাজ করছে। অধ্যক্ষ বটু গোপাল দাস বলেন, ডিগ্রি পর্যায়ে বিধি মোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কর্মচারী ১৮ জন।এই দির্ঘ সময়েও ডিগ্রি পর্যায়ের শিক্ষক /কর্মচারী এমপিও ভুক্ত না হওয়ায় তাঁরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন এবং শিক্ষার মান ভীষনভাবে ব্যহত হচ্ছে। তিনি বলেন এমপিও করবার জন্য আমাদের এমপি মহোদয় জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীন বেশ কয়েকবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ডিও লেটার প্রদান করেছেন।এমপিও ভুক্তির জন্য বিভিন্ন সময়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে চাহিদাও নেওয়া হয়েছে কিন্তু আমরা এখনো কোন সুখবর পাইনি। শিক্ষামন্ত্রণালয়ের পত্র স্মারক নং-৩৭.০০.০০০০.০০১.০০১.২০১৫-১৬৮ তারিখ ১০/০৫/২০১৫ খ্রি. মারফত জেলা প্রশাসক মহোদয়ের মাধ্যমে এমপিও ভুক্তির জন্য প্রতিষ্ঠান যাচাই বাছাই করা হয়। যাচাই বাছাইয়ে অমারা জেলাতে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করলেও আজও ডিগ্রি পর্যায়ে এমপিও ভুক্ত হয়নি। দ্রুততার সঙ্গে ডিগ্রি শিক্ষক ও কর্মচারীদের এমপিও ভুক্তির দাবী করেন তিনি। কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি খুলনা বিভাগের সেরা জনপ্রতিনিধি ও বিদ্যোৎসাহী ব্যক্তিত্ব জনাব স্বপন দাশ বলেন সরকারের সিদ্ধান্ত হীনতার কারনে শিক্ষার মান ভিষন ভাবে ব্যহত হচ্ছে।অধিভুক্তি দেওয়ার আগে মন্ত্রণালয়ের এ বিষয় গুলি বিবেচনায় আনা দরকার ছিল। তিনি বলেন ,এ কলেজ নিয়ে আমাদের ও আমাদের মাননীয় সংসদ সদস্য জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীনের অনেক স্বপ্ন, কিন্তু ডিগ্রি পর্যায়টি এমপিও ভুক্ত না হওয়ায় অনেক কিছু বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। তিনিও দ্রুততার সঙ্গে কলেজটির ডিগ্রি পর্যায়ে এমপিও ভুক্তির দাবী করেন।