শূন্য হাতে শুরু মিঠুনের টেস্ট ক্যারিয়ার

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ওয়ানডে ক্রিকেটে পয়েন্ট অঞ্চল দিয়েই নিয়মিতই অনেক রান করেন তিনি। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে লাল বলের ক্রিকেটে তিন স্লিপ ও গালি ফিল্ডারের মাঝ দিয়ে পয়েন্ট অঞ্চলে রান করাটা যে কঠিন কাজ তা বেমালুম ভুলে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের অভিষিক্ত ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুন।

যার ফলে হয়েছে যা হওয়ার তাই। নিজের অভিষেক ম্যাচে খালি হাতেই ফিরতে হয়েছে সাজঘরে। দশ ওভারের মধ্যে দুই ওপেনারের বিদায়ে উইকেটে এসেছিলেন মিঠুন। ইনিংসের দ্বাদশ ওভারে আউট হয়ে দলের বিপদ আরও বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

নিজের অভিষেক ইনিংসে মাত্র ৪ বল খেলতে পেরেছেন মিঠুন। ডানহাতি পেসার ডোনাল্ড তিরিপানোর অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল তাড়া করতে গিয়ে মাঝ ব্যাটে খেলতে পারেননি ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। ব্যাটের কানায় লেগে দ্বিতীয় স্লিপে ধরা পড়েন ব্রেন্ডন টেইলরের হাতে। দেশের ইতিহাসের বিশতম ব্যাটসম্যান হিসেবে শূন্য রানে আউট হওয়ার নজির দেখালেন তিনি।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ১৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেট ৩৩ রান। দলের দুই ভরসার পাত্র মুমিনুল হক এবং মুশফিকুর রহিম রয়েছেন ইনিংস গড়ার দায়িত্বে।

ওয়ানডে সিরিজের তিন ম্যাচেই প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়েকে স্রেফ কচুকাটা করেছিলেন বাংলাদেশ দলের বাঁহাতি ওপেনার ইমরুল কায়েস। দুই সেঞ্চুরি ও এক ফিফটিতে গড়েছিলেন নতুন রেকর্ডও। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে সে ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারছেন না ৩১ বছর বয়সী এ ব্যাটসম্যান।

সিলেটে প্রথম টেস্টে ব্যর্থতার পরে ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে শূন্য রানেই সাজঘরে ফিরে গিয়েছেন ইমরুল। তার দেখাদেখি খানিক পরে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন আরেক ওপেনার লিটন দাসও। ইনিংসের শুরুতেই দুই ওপেনারের বিদায়ে পড়ে যায় বাংলাদেশ।

টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই নড়বড়ে ছিলেন ইমরুল। ১৫টি বল মোকাবেলা করেও ব্যর্থ হন রানের খাতা খুলতে। ইনিংসের ৭ম ওভারের চতুর্থ বলে, নিজের মুখোমুখি ১৬তম ডেলিভারিতে জিম্বাবুয়ের উইকেটরক্ষক রেগিস চাকাভার দুর্দান্ত এক ক্যাচে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় তাকে।

ইমরুলের মতো অত নড়বড়ে না হলেও কাইল জার্ভিস, টেন্ডাই চাতারাদের সুইংয়ের বিপক্ষে পেরে উঠছিলেন না লিটন দাসও। তবে রয়ে-সয়ে ৩৪ বল খেলে দেন তিনি। ইনিংসের ৯ম ওভারে জার্ভিসের বোলিংয়ে ফ্লিক করতে গিয়ে শর্ট মিড উইকেট ফিল্ডারের হাতে ধরা পড়ে যান তিনি। ৩৫ বল থেকে ৭ রান করতে সক্ষম হন লিটন।