শিশুর শারীরিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশে মায়ের দুধের কোন বিকল্প নেই: রাষ্ট্রপতি

ঢাকা, ৩১ জুলাই, ২০১৮ : রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসইউন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনে মা ও শিশু স্বাস্থ্যের উন্নয়নে গুরুত্ব দিতে হবে।
আগামীকাল ১ আগস্ট ‘বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ’ উপলক্ষে আজ এক বাণীতে তিনি আরো বলেন, শিশুর শারীরিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশে মায়ের দুধের কোন বিকল্প নেই।
মাতৃদুগ্ধপানের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ পালিত হচ্ছে জেনে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।
রাষ্ট্রপতি বলেন, মায়ের দুধই শিশুর প্রধান খাদ্য। শিশু খাদ্যের প্রাকৃতিক ও অত্যন্ত নিরাপদ উৎস মায়ের দুধ। বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০১৮ এর মূল প্রতিপাদ্য ‘মায়ের দুধ পান: স্স্থু জীবনের বুনিয়াদ’ যথার্থ বলে তিনি উল্লেখ করেন।
তিনি বলেন, শিশুর পুষ্টি এবং শারীরিক বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় সকল খাদ্য উপাদান মায়ের দুধে বিদ্যমান। বিশেষজ্ঞদের মতে পূর্ণ ৬ মাস বয়স পর্যন্ত মায়ের দুধ শিশুর পরিপূর্ণ শারীরিক ও মানসিক বিকাশ নিশ্চিত করে। জন্মের ১ ঘণ্টার মধ্যে শিশুকে মায়ের দুধ দিলে ৩১ শতাংশ নবজাতকের মৃত্যু রোধ, ১৩ শতাংশ শিশুমৃত্যু এবং ৬ মাস বয়সের পর মায়ের দুধের পাশাপাশি ঘরে তৈরি বাড়তি খাবার খাওয়ানোর মাধ্যমে ৬ শতাংশ শিশুমৃত্যু কমানো সম্ভব। সমাজ ও রাষ্ট্রের টেকসই উন্নয়ন ও সুস্থ সবল জাতি গঠনে মায়ের দুধের উপকারিতা সম্পর্কে জনসাধারণকে অবহিত করার পাশাপাশি সন্তানকে স্তন্যদানে মায়েদের উৎসাহিত করা প্রয়োজন।
আবদুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশ সাফল্যের সাথে সহ¯্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করেছে। দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সাথে সাথে অর্থনৈতিক কর্মকা-ে নারীর অংশগ্রহণ ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিকল্প শিশুখাদ্যের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে কর্মজীবী মায়েদের সন্তানকে স্তন্যদানে উৎসাহিত করার পাশাপাশি কর্মস্থল ও গণপরিবহণে মায়েদের জন্য স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করা প্রয়োজন।
তিনি কর্মজীবী মায়েদের মাতৃত্বকালীন সুরক্ষা বিধানে সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।