শিবপুরে ৩য় শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণ, মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে

এম শাহরিয়ার জিলন, ভোলা : ভোলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ৩য় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে এক লম্পট। পরে স্থানীয়রা ধর্ষণর শিকার ওই শিশুটিকে গুরুত্বর আহত অবস্থা উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে ভিকটিম হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। বৃহস্পতিবার (১৮ মে) বিকেলে সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের শিবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দোষিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সদরের শিবপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ নোয়াব আলীর ১১ বছরের মেয়ে রতনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী (ভিকটিম) প্রতিদিনের মতো স্কুল থেকে বাড়িতে এসে ছাগল চড়াতে যায়। ভিকটিম পাশের একটি কদম গাছ থেকে ফুল পাড়তে উঠে। এসময় স্থানীয় মৃত নজির ড্রাইভারের ছেলে মোঃ জসিম ওই ছাত্রীকে ছুড়ি দেখিয়ে ভয় দেখায়। পরে ভিকটিম গাছ থেকে নিচে নেমে আসলে জসিম তার মোবাইলটি ভিকটিমের হাতে দেয়। ভিকটিম মোবাইল ফোনটি হাতে নিলে জসিম তার গলায় ছুটি ঠেকিয়ে পাশের ঝোপঝাড়ে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ভিকটিম অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এসময় পরিবারের লোকজন ও স্থানীয়রা এসে তাকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে ভিকটিম হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। এলাকাবাসী এ ঘটনার সাথে জড়িত জসিমের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন।
ভিকটিমের মা রেহানা বেগম বলেন, আমার মেয়ে স্কুল থেকে বাড়িতে এসে ছাগল চড়াতে যায়। সে পাশের একটি কদম গাছ থেকে ফুল পাড়তে উঠলে স্থানীয় নজির ড্রাইভারের বখাটে ছেলে আমার মেয়েকে গলায় ছুরি ঠেকিয়ে পাশের ঝোপঝাড়ে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। পরে আমরা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। আমি এ ঘটনার সাথে জড়িত জসিমের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি। যাতে এরকম ঘটনা আর কারো সাথে না ঘটে।
স্থানীয়রা বলেন, দরিদ্র জেলে মোঃ নোয়াব আলীর ৩য় শ্রেণীতে পড়–য়া মেয়েকে স্থানীয় বখাটে মোঃ জসিম জোবপূর্বক ধর্ষন করেছে। সে ইতিপূর্বে এলাকায় এ ধরনের একাধিক ঘটনা ঘটিয়েছে। এছাড়াও সে ইয়াবা, গাজা সহ বিভিন্ন অপরাধের সাথে জড়িত। আমরা এ ঘটনায় জসিমের কঠোর শাস্তি দাবী করছি। যাতে এলাকায় এ ধরনের ঘটনা আর না ঘটে।
এ ব্যাপারে বাল্য বিয়ে ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি এ্যাড: সাহাদাত হোসেন শাহিন বলেন, শিবপুর ইউনিয়নে ৩য় শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণ ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। আমরা এ ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি। যাতে এ ধরনের ঘটনা আর কোন শিশুর সাথে ঘটনা ঘটে। প্রশাসন এ ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমি প্রকাশ আশা করছি।

Inline
Inline