শার্শায় পরকীয়ার কারণে স্ত্রীর দেওয়া বিষ মিশ্রিত ঔষুধ খেয়ে স্বামীর মৃত্যু

এস এম মারুফ, বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের শার্শার উলাশীতে পরকীয়ার কারণে স্ত্রীর দেওয়া বিষ মিশ্রিত ঔষুধ খেয়ে সদ্য বিদেশ ফেরৎ স্বামীর মর্মান্তিক মৃত্যু।
নিহত শামছুর রহমান (৪০) সে শার্শা উপজেলার উলাশী গ্রামের মৃত আরশাদ আলীর ছেলে।
এলাকাবাসি ও নিহতের স্বজনরা জানায়, শামছুর রহমান ৯/১০ বছর আগে অভাবি সংসারের সুখ-শান্তির জন্য মালয়েশিয়া পাড়ি জমায়। মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় স্ত্রী পারুল খাতুন (৩৫), ছেলে তন্ময় (১৭) ও মেয়ে তন্বী (১২)কে রেখে যান। তিনি নিদেশের মাটিতে পা রাখার কিছুদিন পার হতে না হতেই তার বাড়িতে যাওয়া-আসা করত ঝিকরগাছা উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মৃত গোলাম সরদারের ছেলে ও এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী রুবেল (৩৫)।
সেই সুবাদে নিহত শামছুর রহমানের স্ত্রী পারুলের সাথে রুবেলের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে তা দৈহিক সম্পর্কের সৃষ্টি হয়।
একদিন তাদের দু’জনকে ঘনিষ্ঠ ভাবে দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা রুবেলকে হাতেনাতে ধরে রশি দিয়ে খুটির সাথে বেধে রেখেছিল বলেও প্রতিবেশীরা অভিযোগ করেন।
জানা যায়, মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে বসবাস করার অপরাধে শামছুর রহমান সেখানে জেল খাটার পর রুগ্ন শরীর নিয়ে সপ্তাহ ২ আগে বাড়ি আসে।
শামছুর রহমান বাড়িতে এসে স্থানীয় গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসার কাজ চালিয়ে যাচ্ছিল। গত শনিবার স্ত্রী পারুল স্বামীকে বলবর্ধক সিরাপ পানের পরামর্শ দিলে স্বামী শামছুর রহমান খুশী মনে সিরাপ পানে রাজি হন। স্ত্রী পারুল বাড়ির পাশে উলাশী বাজারের ঔষুধের দোকান থেকে সিরাপ ও ট্যাবলেট আনিয়ে সিরাপের সাথে ঘাস নির্মূলের বিষাক্ত ঔষুধ মিশিয়ে স্বামী শামছুর রহমানকে খাওয়ানোর সাথে সাথে স্বামীর পেটের ভিতর অসহ্য যন্ত্রনা শুরু হলে বোতলের অবশিষ্ট সিরাপ স্বামী বোতলসহ বাড়ির উঠানের ফুল গাছের উপর ছুড়ে ফেলে দেয়। এরপর শামছুর রহমানকে গুরতর অসুস্থ অবস্থায় তার স্বজনরা যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার পর তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।। সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় বুধবার রাত ৩টার সময় তার মৃত্যু হয়।