রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে সংসদে আলোচনা প্রস্তাব

নিজস্ব প্রতিবেদক : মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নির্যাতিত-নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের ওপর বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে একটি আলোচনা প্রস্তাব উত্থাপিত হয়েছে। এই প্রস্তাবে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধ, পুশইন থেকে বিরত থাকা এবং রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে কূটনৈতিক তৎপরতা জোরদারের আহ্বান জানানো হয়।
সোমবার সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে জাতীয় সংসদে এই প্রস্তাব উত্থাপিত হয়। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এই প্রস্তাব উত্থাপন করেন।প্রস্তাবে ডা. দীপু মনি রোহিঙ্গারা যে ঐতিহাসিকভাবে রাখাইনের নাগরিক তা প্রমাণসহ তুলে ধরেন।প্রস্তাব উত্থাপনের পর সংসদ সদস্যদের মধ্যে সর্বপ্রথম ডা. দীপু মনি বক্তব্য দেন। পরে বক্তব্য দেন কক্সবাজারের সাংসদ সাইমুম সারওয়ার কমল। পরে অন্যান্য সদস্যরা এই প্রস্তাবের ওপর আলোচনা করবেন। আলোচনা শেষে এই প্রস্তাব সংসদে পাস হওয়ার কথা রয়েছে।গত ২৫ আগস্ট রাতে রাখাইনে একসঙ্গে ৩০টি পুলিশ পোস্ট ও একটি সেনাক্যাম্পে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরএসএ) হামলা চালায় বলে দাবি মিয়ানমার সরকারের। ওই হামলায় নিরাপত্তা বাহিনীর ১২ সদস্যসহ ৮৯ জন মারা যায় বলে তাদের ভাষ্য। এরপরই রাজ্যটিতে শুরু হয় সেনা অভিযান।বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, সেনা অভিযানে রাখাইনে তিন হাজারের অধিক রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়েছে। আর প্রাণ বাঁচাতে সর্বস্ব হারিয়ে বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকায় আশ্রয় নিয়েছেন তিন লাখের অধিক রোহিঙ্গা। যাদের অধিকাংশই নারী ও শিশু।বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের অবস্থা সরেজমিনে দেখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল মঙ্গলবার কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালংয়ে শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শনে যাবেন। এর একদিন আগে সংসদে এ ব্যাপারে আলোচনা প্রস্তাব এলো।