রাশিয়া বিশ্বকাপের স্টেডিয়াম পরিচিতি-৪

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আর কয়েকদিন পরেই পর্দা উঠবে ফুটবল বিশ্বকাপের। বিশ্বকাপের ২১তম এই আসর আয়োজনের গুরুদায়িত্ব পেয়েছে বিশ্ব মানচিত্রের সবচেয়ে বড় দেশ রাশিয়া। বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নানা ভাবে তৈরি হচ্ছে দেশটি। তারই ধারাবাহিকতায় রাশিয়ার ১১টি শহরে তৈরি করা হয়েছে ১২টি স্টেডিয়াম। যার মধ্যে ছয়টি স্টেডিয়ামই তৈরি হয়েছে এই বিশ্বকাপের জন্য। বিশ্বকাপে স্টেডিয়াম নির্মাণ ও পুনঃসংস্কারে ব্যয় করা হয়েছে প্রায় ৫.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার!

রাশিয়া বিশ্বকাপের ১২ টি স্টেডিয়াম নিয়ে ১২ পর্বের ধারাবাহিকের তৃতীয় দিনে থাকছে ইয়াকতেরিনবার্গ অ্যারেনা স্টেডিয়ামটির খুঁটিনাটি।

ইয়াকতেরিনবার্গ অ্যারেনা, ইয়াকতেরিনবার্গ

রাশিয়ার চতুর্থ বৃহত্তম শহর ইয়েকাতেরিনবার্গ। ১৮ নভেম্বর ১৭২৩ সালে গড়ে উঠেছে এই শহর। সম্রাট পিটার তার প্রিয়তমা স্ত্রী একেতারিনার নামে শহরের নামকরণ করেন ইয়েকাতেরিনবার্গ। এটি রাশিয়ার শীতলতম অঞ্চল। আগে এর নাম ছিল সেন্ট্রাল স্টেডিয়াম। ১৯৫৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় সেন্ট্রাল স্টেডিয়াম। মূলত শীতকালীন খেলাধুলার জন্যই ইয়াকতেরিনবার্গ অ্যারেনা স্টেডিয়ামটি তৈরি করা হয়।

আসন সংখ্যা কম বলে শুরুদিকে স্টেডিয়ামটিকে ‘ফিফা স্টান্ডার্ড নয়’ বলে ভেন্যু হিসেবে প্রত্যাখান করে ফিফা। তখন সেখানে মাত্র ২৭ হাজার আসন ছিলো। পরে ২১৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যায় করে আসন সংখ্যা ২৭ হাজার থেকে ৪৫হাজার করা হয়। ফলে এটি বিশ্বকাপের জন্য বিবেচিত হয়। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে ইয়াকতেরিনবার্গে মাত্র ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

• ইয়াকতেরিনবার্গ অ্যারেনায় অনুষ্ঠিতব্য ম্যাচ সমূহ–

১৫ জুন, মিশর বনাম উরুগুয়ে

২১ জুন, ফ্রান্স বনাম পেরু

২৪ জুন, জাপান বনাম সেনেগাল

২৭ জুন, মেক্সিকো বনাম সুইডেন