রাত পোহালে তালা উপজেলা নির্বাচন, সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

এস এম বাচ্চু, তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : রাত পোহালে (রবিবার) তালায় ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন অফিস ও প্রসাশন। এবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩ পদের বিপরীতে মোট ৯ জন প্রার্থী লড়ছেন। এতে মোট ভোটারের সংখ্যা ২ লক্ষ ৩৭ হাজার ৪৬৫। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ১৯ হাজার ২৮৫ জন ও মহিলা ভোটার ১ লক্ষ ১৮ হাজার ১৬১ জন।

প্রকাশ, চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার (নৌকা) ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বর্তমান সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এম এম ফজলুল হক (আনারস), ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ইখতিয়ার হোসেন (টিউবওয়েল), মোঃ আব্দুল জব্বার সরদার (তালা), উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সরদার মশিয়ার রহমান (উড়োজাহাজ), প্রভাষক মোঃ আমিনুজ্জামান (চশমা), মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাংবাদিক শাকিলা ইসলাম জুঁই (হাঁস), কৃষিবিদ মুর্শিদা পারভীন পাপড়ী (কলস) ও জেবুন্নেছা খানম (পদ্মফুল) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

জেলা পুলিশ সূত্রে প্রকাশ, তালা উপজেলার ৯২টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৬টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। প্রত্যেক কেন্দ্রে ১২ জন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বাড়তি আরো দু’জন অস্ত্রধারি সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়া প্রতি দু’ইউনিয়নে একজন করে পরিদর্শকের নেতৃত্বে মোবাইল টিম দায়িত্ব পালন করবেন। ১০ জন পুলিশের কয়েকেটি টিম টহল দেবেন। প্রতি থানায় ২০ সদস্য বিশিষ্ট বিজিবি’র টিম ও র‌্যাবের টিম টহলে থাকবেন। এছাড়া প্রত্যেকটি থানায় জুডিশিয়াল/নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে তিনটি টিম ও একটি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হবে।

এদিকে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, চেয়ারম্যান পদে ঘোষ সনৎ কুমার ও মুক্তিযোদ্ধা এম এম ফজলুল হকের মধ্যে জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. ইখতিয়ার হোসেন, সরদার মশিয়ার রহমান ও সাংবাদিক আব্দুল জব্বারের মধ্যে এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাংবাদিক শাকিলা ইসলাম জুঁই ও কৃষিবিদ মুর্শিদা পারভীন পাঁপড়ীর মধ্যে লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। তবে সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও প্রভাবমুক্ত নির্বাচনের দাবি করেন সাধারণ ভোটাররা।