রবির ব্যয় বেড়েছে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে

চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে যোগ হওয়া ১৬ লাখ নতুন গ্রাহক নিয়ে বর্তমানে রবি’র মোট গ্রাহক সংখ্যা ৪ কোটি ১২ লাখ যা দেশের মোট মোবাইল ফোন গ্রাহকের ২৯ দশমিক ৩ ভাগ। ডেটা খাতে রাজস্ব ১৪ দশমিক ৬ শতাংশ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত প্রান্তিক থেকে এ প্রান্তিকে রাজস্ব ৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ১ হাজার ৭৫০ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে।

রবি ও এয়ারটেল একীভূতকরণের ফলে গত বছরের একই প্রান্তিকের তুলনায় এ প্রান্তিকে সার্বিক রাজস্ব বৃদ্ধির পরিমাণ ২৬ দশমিক ১ শতাংশ, ভয়েস সেবায় রাজস্ব বৃদ্ধির পরিমাণ ৩১ দশমিক ৭ শতাংশ এবং ডেটা খাতে রাজস্ব বৃদ্ধির পরিমাণ ৭৯ দশমিক ৭ শতাংশ। নেটওয়ার্ক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ এবং ৩.৫জি ডেটা সেবায় গ্রাহক-বান্ধব ও উদ্ভাবনী অফার প্রদান করায় ডেটা খাতে রাজস্ব বৃদ্ধি পেয়েছে।

চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে পরিচালন মুনাফার মার্জিন (ইবিআইটিডিএ মার্জিন) ২২ দশমিক ২ শতাংশ। মূলত একীভূকরণে ব্যয় ও নেটওয়ার্ক উন্নয়নে বিনিয়োগের ফলে এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে রবি’র মোট ক্ষতির পরিমাণ ৪৬ কোটি ৯০ লাখ টাকা এবং এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত মোট ক্ষতির পরিমাণ ১৫০ কোটি।

গ্রাহকদের মানসম্মত ভয়েস ও ডেটা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে ৩.৫জি নেটওয়ার্কের বিস্তার এবং ২.৫জি নেটওয়ার্কের মান আরো বৃদ্ধির জন্য ক্রমাগত বিনিয়োগ করছে রবি। ২০১৭ সালের তৃতীয় প্রান্তিকের ৩৪০ কোটি টাকাসহ কোম্পানির কার্যক্রম শুরুর পর থেকে রবি’র মোট মূলধনী ব্যয়ের পরিমাণ ১৯ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা।

রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘এয়ারটেলের সাথে একীভূতকরণের পর দেশের প্রতিটি স্থানে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক সম্প্রসারিত করেছে রবি। রবির নেটওয়ার্ক ও সেবার ওপর আস্থা বৃদ্ধি পাওয়ায় গ্রাহকদের কাছে প্রিয় ব্র্যান্ড হয়ে উঠছে রবি ও এয়ারটেল। গত ছয় মাসে রবি’র সক্রিয় গ্রাহক সংখ্যা ১৩ দশমিক ৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।’

২০১৭ সালের তৃতীয় প্রান্তিকে রবি রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ৬৭০ কোটি টাকা জমা দিয়েছে যা মোট রাজস্বের ৩৮ দশমিক ২ শতাংশ।