রক্তাক্ত নারীর সতর্কতায় বাঁচলেন তামিম-মুশফিকরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আর একটু হলেই শেষ হয়ে যেতে পারতো বাংলাদেশ ক্রিকেটের নক্ষত্ররা। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে নৃশংস সন্ত্রাসী হামলা থেকে তামিম-মুশফিকদের বাঁচালেন একজন অজ্ঞাত নারী।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ টেস্টকে সামনে রেখে ক্রাইস্টচার্চে হ্যাগলি ওভাল মাঠে শুক্রবার অনুশীলন করছিল বাংলাদেশ দল। জুমার দিন হওয়াতে অনুশীলন শেষে মসজিদে নামাজের উদ্দেশ্যে রওনা হন ক্রিকেটাররা। মাঠের পাশেই অবস্থিত মসজিদটির নাম আল নূর। বাংলাদেশ দলের বাসটি তখন মসজিদের সামনে। ক্রিকেটাররা গাড়ি থেকে নেমে মসজিদে ঢুকবেন, এমন সময় একজন রক্তাক্ত নারী ভেতর থেকে বেরিয়ে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। টাইগাররা তখনও বুঝতে পারেননি যে ভেতরে কি চলছিল!

বাংলাদেশ দল মসজিদে ঢুকারই প্রস্তুতি নিচ্ছিলো। এমন সময় টাইগার বাসের পাশের একটি গাড়ি থেকে সেই নারী বলে উঠেন, ‘তোমরা ভেতরে যেও না। মসজিদের ভেতর গোলাগুলি চলছে। আমার গাড়িতেও গুলি লেগেছে।’

ক্রিকেটাররা তখন বাসেই আটকা পড়ে যান। কারণ ততক্ষণে নিরাপত্তাবাহিনী রাস্তায় গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। এরপর বাস থেকেই মসজিদের ভেতর হওয়া নৃশংস সন্ত্রাসী হামলার শব্দ শুনতে পান ক্রিকেটাররা । মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন তারা। খুব আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। কারণ বাসে তখন কোনো নিরাপত্তা বাহিনীর কোনো লোক ছিল না। পরে নিজেদের সিদ্ধান্তেই বাস থেকে নেমে হেটে মাঠের দিকে চলে আসে টিম বাংলাদেশ। আর একটু আগে আসলেই শেষ হয়ে যেত সবকিছু।

ইতিমধ্যে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচটি বাতিল করা হয়েছে। আর যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে টিম বাংলাদেশকে।