রংপুরে ভোট: জাপাকে নিয়েও রিজভীর অভিযোগ

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পাশাপাশি প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক দল জাতীয় পার্টিকে (জাপা) নিয়ে অভিযোগ তুলেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। তার দাবি, আওয়ামী লীগের পাশাপাশি জাপা নেতারাও সেখানে আচরণবিধি লংঘন করছেন। এ কারণে এই ভোট সুষ্ঠু হবে কি না, সে নিয়ে সংশয়ে তিনি।

রিজভীর দাবি, বিএনপির প্রার্থী কাউসার জামান বাবলা সেখানে সমান সুযোগ পাচ্ছেন না। আর চাকরি বাঁচাতে নির্বাচন কমিশন এবং রংপুর জেলা প্রশাসন তার সঙ্গে বিমাতাসূলভ আচরণ করছে।

২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট থেকে এরশাদের জাতীয় পার্টি বের হয়ে আসলেও এই মহাজোটের কথাই তুলে ধরেছেন রিজভী। বলেছেন, নির্বাচন কমিশন এই মহাজোটের পক্ষেই আছে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, নির্বাচন কমিশনও আওয়ামী মহাজোটকে খুশি করতে বিরামহীনভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, এ নির্বাচন তার একটি উদাহরণ।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের চার দিন ধরে এলাকায় অবস্থান এবং নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় নিয়েও আপত্তি জানান রিজভী। সেই সঙ্গে জাতীয় পার্টির আরেক নেতা প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গার রংপুরে অবস্থান নিয়েও আপত্তি আছে তার।

ওই এলাকার ভোটার হিসেবে তাদেরকে এরশাদ ও রাঙ্গাকে সেখানে থাকতে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তবে রিজভীর দাবি, এটা নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা এ ক্ষেত্রে নির্বিকার থেকেছেন।

যেসব জেলায় বিএনপির অবস্থান দুর্বল, তার মধ্যে একটি রংপুর। সেখানে ভোটে বিএনপি কখনও ভালো করতে পারেনি। ২০১২ সালে সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনেও বিএনপির ভরাডুবি হয়েছিল।

তবে এবার রংপুরে ধানের শীষের প্রার্থী কাওসার জামান বাবলার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে দাবি করে ভোটে জেতার আশা করছে বিএনপি। সেই সঙ্গে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে আশঙ্কার কথাও জানিয়ে আসছে দলটি।

ভোটের তিন ঘণ্টা পর বেলা ১১টায় নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, তারা আগেই আশঙ্কা করেছিলেন রংপুরে ভোট সুষ্ঠু হবে না। সকাল থেকে দেখা পরিবেশে সেটাই এখন সত্য মনে হচ্ছে।

রিজভী বলেন, ‘আমরা বারবার রংপুর সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়া নিয়ে গভীর সংশয় প্রকাশ করেছি এবং ইলেকশন কমিশনকে এ ব্যাপারে উদ্যোগী হবার আহ্বান জানিয়েছি।…সব মিলিয়ে আজকে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপক্ষে হওয়ার ক্ষেত্রে আমরা আবারো গভীর সন্দেহ ও সংশয় প্রকাশ করছি।’

ক্ষমতাসীন দলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিবের অভিযোগ, বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে তাদের পোলিং এজেন্টদের বের করে দিচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীরা। বিএনপির নেতা-কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে গত রাতে হুমকি ধামকি ও ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে।

ভোটে সেনা মোতায়েনের দাবি ছিল বিএনপির। কিন্তু নির্বাচন কমিশন সে দাবি পূরণ করেনি। আর এর বদলে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে বিজিবি এবং নিয়মিত বাহিনী হিসেবে র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েন করেছে।

নিরাপত্তা বাহিনীর এসব সদস্যদেরকে ‘আওয়ামী লীগ এবং মহাজোটের ক্যাডার’ হিসেবে দেখছেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘বলা হয়েছে- নির্বাচন সুষ্ঠু করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর যত সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে, বাস্তবে বেছে বেছে আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের অনুসারী ক্যাডারদেরই নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

নির্বাচন কমিশন ভোটে ১৯৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ১২৮টিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তবে রিজভীর দাবি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের সংখ্যা আরও বেশি।

বৃহস্পতিবার সকাল আটটা থেকে শুরু হওয়া রংপুরে ভোট চলছে শান্তিপূর্ণভাবেই। এখন পর্যন্ত কোথাও বড় ধরনের কোনো গোলযোগের খবর পাওয়া যায়নি।

Inline
Inline