রংপুরে অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে শিক্ষকদের কর্মবিরতি

ডেস্ক রিপোর্ট: রংপুরে কারমাইকেল কলেজ অধ্যক্ষ আব্দুল লতিফ মিয়ার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহণসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে তার অপসারণ দাবি করেছে কলেজের শিক্ষকরা। এ দাবিতে প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে কর্মবিরতি শুরু করেছেন তারা। অনতিবিলম্বে তাকে অপসারণ করা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন শিক্ষক নেতারা।

শনিবার সকালে শিক্ষকরা কর্মবিরতি শুরু করেন। এ সময় তারা কালোব্যাচ ধারণ ও রাস্তায় কলম রেখে অধ্যক্ষের অনিয়মের প্রতিবাদ জানান। তাদের সাথে একাত্মতা জানিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন শিক্ষার্থীরা।

কলেজের শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান বলেন, প্রতিটি কাজের জন্য চার শতাংশ হারে ঘুষ দিতে হয় অধ্যক্ষকে। শিক্ষার্থীদের ইনকোর্স পরীক্ষার নম্বরপত্রে টাকা ছাড়া স্বাক্ষর করেন না তিনি। বিভাগের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষায় তাকে চার শতাংশ ঘুষ দিতে হয়, যা অনেকটা অফিসিয়াল নির্দেশনা। তার এসব অনিয়মের বিষয়ে একাধিকবার প্রতিবাদ জানানো হলেও কোন লাভ হয়নি। এমনকি শুদ্ধাচার বিষয়ক একটি কর্মশালায় শিক্ষকদের সামনে তিনি ঘুষ নেবেন না বলে অঙ্গীকারও করেছেন। পরে দশ হাজার টাকা ছাড়া অভ্যন্তরীণ একটি পরীক্ষার ফাইলে তিনি স্বাক্ষর পর্যন্ত করেননি।

আন্দোলনরত শিক্ষকরা জানান, অধ্যক্ষ আব্দুল লতিফ মিয়ার অনিয়মের কথা বলতে গেলেই বদলি ও মামলার হুমকি দেন তিনি। গত ৮ ফেব্রুয়ারি সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগ তুলে উপাধ্যক্ষসহ ৯ সিনিয়র শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন অধ্যক্ষ। বিষয়টি জানাজানি হলে অভিযোগটি প্রত্যাহার করেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ভায়রা হওয়ায় তিনি এসব অনিয়ম করে আসছেন বলে অভিযোগ করেন তারা।

কারমাইকেল কলেজ উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুর রাজ্জাক জানান, অধ্যক্ষের অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চালিয়ে যাবেন তারা।`

Inline
Inline