রংপুরের উন্মুক্ত ৩টি আসনে জাপার ভরাডুবি

রংপুর সংবাদদাতা : এক সময়ে জাতীয় পার্টির (জাপা) দুর্গখ্যাত রংপুরের তিনটি আসনে ভারাডুবি হয়েছে দলটির। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুর-২ (বদরগঞ্জ-তারাগঞ্জ), রংপুর-৪ (কাউনিয়া-পীরগাছা) ও রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে মহাজোটের উন্মুক্ত লড়াই হয়। অন্য তিনটি আসনে মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টি রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া ও আংশিক সিটি ) ও রংপুর-৩ (সদর) আসনে এবং রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। মহাজোটের এ তিনটি আসনের মধ্যে দুইটিতে (রংপুর-১ ও রংপুর-৩) জাতীয় পার্টি জয় পেলেও উন্মুক্ত তিনটি আসনে ভরাডুবি হয়েছে।

রোববার অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ঘোষিত ফলাফল থেকে জানা যায়, রংপুর-২ (বদরগঞ্জ-তারাগঞ্জ) আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১২ হাজার ৭৬৬ জন। এর মধ্যে ১ লাখ ১৮ হাজার ৩৬৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের ডিউক চৌধুরী। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মোহাম্মদ আলী পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৩৫০ ভোট। এই আসনে জাতীয় পার্টির আসাদুজ্জামান চৌধুরী সাবলু পেয়েছেন ২৪ হাজার ১৭ ভোট।

রংপুর-৪ (পীরগাছা-কাউনিয়া) আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ১২হাজার ৫৮২ জন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের টিপু মুন্শি ১ লাখ ৯৯ হাজার ৯৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির এমদাদুল হক ভরসা ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ১ লাখ ৪ হাজার ৭৭ ভোট। এই আসনে জাতীয় পার্টির মোস্তফা সেলিম বেঙ্গল পেয়েছেন ৭ হাজার ৪৩ ভোট।

রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮৬ হাজার ১১৮ জন। এর মধ্যে ২ লাখ ৪৪ হাজার ৭৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের এইচ এন আশিকুর রহমান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির শাহ্ মো. সোলায়মান আলম পেয়েছেন ৬৪ হাজার ১৪৭ ভোট। এই আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীর পেয়েছেন ১২ হাজার ৫১৬ভোট।

ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির মসিউর রহমান রাঙ্গা রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া) আসনে ১ লাখ ৯৮ হাজার ৯১৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী শাহ রহমত উল্যাহ পেয়েছেন ১৯ হাজার ৪৯৩ ভোট।

রংপুর-৩ (সদর) আসনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পেয়েছেন ১ লাখ ৪২ হাজার ৯২৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৮৯ ভোট।

রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসনে মহাজোট মনোনীত আওয়ামী লীগের শিরিন শারমীন চৌধুরী ২ লাখ ৩৪ হাজার ৪২৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী সাইফুল ইসলাম পেয়েছেন ২৪ হাজার ৫৩ ভোট।

রংপুর-১ ও রংপুর-৬ আসনে বিএনপির দুই প্রার্থী জামানত হারালেও বাকি চারটি আসনে বিজয়ী প্রার্থীদের সঙ্গে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন বিএনপির প্রার্থীরা। অপরদিকে উন্মুক্ত ৩টি আসনের দুইটিতেই (রংপুর-৪ ও রংপুর-৫) জামানত হারিয়েছে জাতীয় পার্টি।