যানজট নেই ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা : ঈদ যাত্রার তৃতীয় দিনে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের মির্জাপুর অংশে এখন পর্যন্ত বড় ধরেনের কোনো যানজটের সৃষ্টি হয়নি। অনেকটা স্বাভাবিক গতিতে চলছে যানবাহন।

রবিবার সকালে ব্যস্ততম এই মহাসড়কে যানবাহনের সংখ্যা বেশি দেখা গেলেও কোনো যানজট দেখা যায়নি। দুএকটি স্থানে কিছু সময়ের জন্য হালকা যানজট দেখা দিলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দ্রুত তার সমাধান করছেন। এর ফলে এখন পর্যন্ত যানজটমুক্ত রয়েছে মহাসড়কটি। যানজট নিরসনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রায় এক হাজার সদস্য রাতদিন দায়িত্ব পালন করছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

সরেজমিনে রবিবার সকালে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা যায়, স্বাভাবিক গতিতে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল করছে। গত কয়েক দিনের চেয়ে মহাসড়কে যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। তাপরও মহাসড়ক অনেক সময় ফাঁকা দেখা গেছে।

পুলিশ বলছে, দুপুরের পর মহাসড়কে সার্বক্ষণিক মহাসড়কেই অবস্থান করছেন। হাইওয়ে পুলিশের পাশাপাশি জেলা ও ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের নিরলসভাবে মহাসড়কে দায়িত্ব পালন করছেন।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক মানেই ঈদে ঘরমুখো মানুষের চরম ভোগান্তির আশঙ্কা। বিগত কয়েক বছর ধরে মহাসড়কে চার লেন প্রকল্পের কাজ চলমান থাকায় উত্তরবঙ্গসহ ২৩টি জেলার মানুষের ভোগান্তির কোনো শেষ ছিল না। টাঙ্গাইলের কালিহাতী থেকে গাজীপুরের ভোগড়া পর্যন্ত প্রায় ৭০ কিলোমিটার এলাকাজুড়েই ছিলো রাস্তা খানাখন্দ আর নানা প্রতিবন্ধকতা। ফলে প্রায় প্রতিদিনই যানজট এবং সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হতো সাধারণ যাত্রী ও গাড়ি চালকদের।

এদিকে মহাসড়কের ২৩টি ব্রিজ যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া মহাসড়কের ধেরুয়া রেল ক্রসিং এলাকায় নির্মিত উড়াল সেতুও শনিবার সকাল থেকে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে। এর ফলে ওই এলাকায় যানবাহনকে আর ট্রেন পারাপারের জন্য অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে না। সেজন্য এবারের ঈদযাত্রায় উত্তরের যাত্রীদের দুর্ভোগ অনেকাংশে কমবে বলে আশা প্রকাশ করছেন ফোরলেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, আশা করছি অন্যান্য সময়ের তুলনায় এবার ঈদ যাত্রায় ঘরমুখো মানুষ ভোগান্তি ছাড়াই নিজ নিজ গন্তব্যস্থলে পৌঁছাতে পারবেন।

মহাসড়কে যানজট নিরসনে পুলিশের পক্ষ থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সড়কে সাদা পোশাকে লোক থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্বদা সহায়তা করবে।

মির্জাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুল হক বলেন, ‘ঈদযাত্রায় মহাসড়কে যানবাহনের চাপ থাকলেও, যানজট নেই। মহাসড়কে অনেক সময় যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ দেখা গেলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে তা কিছু সময় পরই প্রায়ই ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে। যানজট নিরসনে পুলিশ ব্যাপক তৎপর রয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।