যশোরের শার্শা’য় বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস পালিত

এস এম মারুফ, বেনাপোল প্রতিনিধি : “অভিগম্য আগামীর পথে” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে যশোরের শার্শা’য় বিশ্ব ২৮-তম ও জাতীয় ২১-তম প্রতিবন্ধী দিবস পালিত হয়েছে।
মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) বেলা ১০টার সময় শার্শা উপজেলার নাভারন হাসপাতাল মোড়ে দিবসটি পালন করেন শার্শা উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থা, নাভারন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় ও প্রতিবন্ধী থেরাপি সেন্টার।
শার্শা উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সভাপতি আবু বাক্কার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু।
এসময় তিনি বলেন, প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর ক্ষমতায়ন ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মর্যাদা সমুন্নতকরণ, অধিকার সুরক্ষা, প্রতিবন্ধিতা বিষয়ে সচেতনতার প্রসার ও উন্নতি সাধন নিশ্চিতের লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করছেন।
এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূলক কুমার মন্ডল বলেন, প্রতিবন্ধী সন্তান বোঝা নয়। এরা দেশের সম্পদ। ইতিমধ্যে প্রতিবন্ধীদের সামাজিক সুরক্ষা, ক্ষমতায়ন ও উন্নত জীবন প্রস্তুতের লক্ষ্যে সরকার কাজ শুরু করেছেন। তারই ধারাবাহিকায় শার্শা উপজেলার সর্বমোট ৪২০০ জন প্রতিবন্ধীর মধ্যে প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ২৪০০ জন এবং প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তি পাচ্ছে ৩৮৩ জন। এ বছরের প্রাপ্ত বরাদ্ধ ১১০০, বাকি ৩১৭ জন মৃদু প্রতিবন্ধীদের দ্রুত ভাতার আওতায় নিয়ে আসা হবে। এছাড়া শার্শা উপজেলা পরিষদের ফান্ড থেকে শার্শা উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার স্কুল উন্নয়নের জন্য নগদ ২লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছিল। যা দিয়ে স্কুলের জ্বানালা, দরজাসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করা হয়েছে। এবং জেলা প্রশাসকের উন্নয়ন তহবিল থেকে ৮০ হাজার টাকার অনুদান প্রক্রিয়াধীন। যা অচিরেই দেওয়া হবে।
উক্ত অনুষ্ঠানে শার্শা উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সভাপতি আবু বাক্কার বলেন, শার্শার প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর ক্ষমতায়ন ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এখানে একটি প্রতিবন্ধী কমপ্লেক্স অত্যাবশ্যক। স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন শার্শা উপজেলার সকল শিক্ষা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মান খুবই উন্নত করণ করেছেন। সেই সাথে এলাকার মসজিদ, মাদ্রাসা, রাস্তা-ঘাটসহ সর্ব্বপরি সকল ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এখন তাঁর মাধ্যমে এখানে একটি প্রতিবন্ধী কমপ্লেক্স স্থাপন হলে শার্শা উপজেলা যেমন উন্নয়নে স্বয়ংসম্পূর্ণতা পাবে, তেমনি তাঁর নির্বাচনী এলাকার ৪হাজার ২শ প্রতিবন্ধীর জীবন মানের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটবে। যে কমপ্লেক্স নির্মাণের ডিপিপিতে থাকবে অটিস্টিকসহ অন্যান্য বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের ডরমিটরি, অডিটরিয়াম, কারিগরি শিক্ষা, ওপিডি, ফিজিওথেরাপি সেন্টার, শেল্টারহোম, ডে-কেয়ার সেন্টার, বিশেষ স্কুল ইত্যাদির সংস্থান থাকবে।
এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, শার্শা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শেখ আব্দুর রব, সমাজ সেবা কর্মকর্তা আব্দুল ওহাব, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার, শার্শা সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মুরাদ হোসেন, উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হক, সহ-সভাপতি ও নাভারন প্রতিবন্ধী স্কুলের সহকারি শিক্ষিকা শিরিনা খাতুন, প্রধান শিক্ষিকা বন্যা রানী মন্ডলসহ স্থানীয় সূধীবৃন্দ ও অত্র সংস্থার সদস্যবৃন্দ।