মোহামেডানকে হারিয়ে প্রথমপর্ব শেষ করলো রহমতগঞ্জ

বিশেষ সংবাদদাতা : হার দিয়ে লিগ শুরু করেছিল মোহামেডান। হার দিয়েই শেষ করলো প্রথম পর্ব। শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সাদাকালো শিবির ২-১ গোলে রহমতগঞ্জের কাছে হেরে ভারি করলো ব্যর্থতার পাল্লা।

১২ ম্যাচে অষ্টম হারে ৬ পয়েন্ট নিয়ে মোহামেডান পরে থাকলো অবনমন অঞ্চলের আশপাশেই। ১৩ দলের মধ্যে মোহামেডান এখন ১১ নম্বরে।

রহমতগঞ্জ আগের ১১ ম্যাচে পেয়েছিল একটি জয়। শুক্রবার মোহাডোনকে হারিয়ে আসলো দ্বিতীয়টি। ম্যাচের পর কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী বেশ খুশি-এই ম্যাচ জেতায় তারা যে উঠে গেলো অনেকটাই নিরাপদ অবস্থানে। মোহামেডানকে হারিয়ে প্রথমপর্ব শেষ করায় দ্বিতীয়পর্বে আরো ভালো করতে পারবেন বলেই প্রত্যাশা রহমতগঞ্জ কোচের।

ছোট-বড় সব দলই এখন মোহামেডানের কাছে সমান প্রতিপক্ষ। শীর্ষে থাকা বসুন্ধরা কিংবা তলানীর দিকে থাকা নোফেল-ব্রাদার্স কোনো দলের সামনেই এখন বুক চিতিয়ে খেলতে পারে না মোহামেডান। এক সময় ছিল মোহামেডান মাঠে আসবে, খেলবে এবং জিতে ঘরে ফিরবে। এখন জয়টা আস্তে আস্তে দূরে চলে যাচ্ছে সাদাকালোদের কাছ থেকে। মাঠে আসবে, হারবে না হয় ড্র করবে-এটাই যেন দলটির নিয়তি।

প্রিমিয়ার লিগে প্রথম পর্বে ১২ ম্যাচ খেলে মোহামেডানের ঝুলিতে মাত্র একটি জয়। সঙ্গে ৩ ড্র। কী হতাশার চিত্র দলটির! শুক্রবার ম্যাচ শেষে উত্তর গ্যালারি থেকে গলা ফাটিয়েছেন জনা পঞ্চাশে দর্শক। গালাগালি করেছেন নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার এনকোচা কিংসলে কে। গোল মিস করেছেন, পেনাল্টি শট নিয়েছেন ক্রসবারের উপর দিয়ে। অন্তত পেনাল্টি থেকে গোলটা করতে পারলে ম্যাচের ফল অন্য রকমও হতে পারতো। গোলটি হলে যে ২-১ এগিয়ে যেতো মোহামেডান।

চতুর্থ মিনিটে সিয়ো জুনাপিও’র পাস থেকে বল ধরে অনেকটা একক প্রচেষ্টায় গোল করে রহমতগঞ্জকে এগিয়ে দেন ফয়সাল আহমেদ। মোহামেডান ম্যাচে ফিরতে বেশি সময় নেয়নি। ১১ মিনিটে এনকোচার ক্রসে বা পায়ের দর্শণীয় ভলিতে ১-১ করেন হাবিবুর রহমান সোহাগ।

পেনাল্টি মিসের খেসারত দিয়েই হার নিয়ে ঘরে ফিরেছে এখনো প্রিমিয়ার লিগে কোনো ট্রফি না পাওয়া মোহামেডান। ৭৪ মিনিটে সোহেল রানার ক্রসে সিয়ো জুনাপিও গোল করে রহমতগঞ্জকে দ্বিতীয় জয় এনে দেন কঙ্গোর এ ফরোয়ার্ড। ১২ ম্যাচে ২ জয় ৬ ড্রয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে নবম স্থানে থেকে প্রথমপর্ব শেষ করলো পুরোনো ঢাকার ক্লাবটি।