মুন্সীগঞ্জে সনাকের উদ্যোগে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

এস এম সোহেল, মুন্সীগঞ্জ : ‘চাই শিক্ষাক্ষেত্রে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও জনঅংশগ্রহণ’ এই শ্লোগান নিয়ে ২৮ আগস্ট সোমবার সকাল ১০:৩০ ঘটিকায় সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)-টিআইবি মুন্সীগঞ্জের উদ্যোগে এবং সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসের সার্বিক সহযোগিতায় ‘‘প্রাথমিক শিক্ষায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধি এবং মানোন্নয়নে স্থানীয় পর্যায়ে করণীয় শীর্ষক’’ এক সমন্বয় সভার আয়োজন করা হয়। সনাক সহ-সভাপতি তানভীর হাসান এর সভাপতিত্বে শহরের রিস্তা হোটেলে অনুষ্ঠিত এ সভায় সদর উপজেলার কাজী কসবা ক্লাস্টারের ২১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতিবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোহা: হারুন-অর-রশিদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষা ও আইসিটি) এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যথাক্রমে সুরাইয়া জাহান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সদর, পঞ্চানন বালা, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এবং তাছলিমা বেগম, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, মুন্সীগঞ্জ। সভায় শিক্ষক এবং এসএসসি’র সভাপতিগণের পাশাপাশি আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ের সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তাগণ, সনাক, স্বজন, ইয়েস সদস্যসহ স্থানীয় ইলেকট্রিক এবং প্রিন্ট মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ।
সভায় অংশগ্রহণকারীগণ প্রাথমিক শিক্ষায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধি এবং মানোন্নয়নের লক্ষ্যে স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে করণীয় বিষয়ে বিভিন্ন প্রস্তাবনা করেন যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- প্রাক-প্রাথমিকের জন্য শ্রেণী কক্ষ ও শিক্ষক নিশ্চিতকরণ, এসএমসিকে আরো সক্রিয় করার লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ, রাজনৈতিক প্রভাব মুক্ত এসএমসি গঠন, শূন্য পদে দ্রুততম সময়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শিক্ষক নিয়োগ, বিদ্যালয় চলাকালিন সময়ে শিক্ষকগণের মোবাইল ফোন ব্যবহারের প্রবণতা রোধ, বিদ্যালয়ের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারি নিয়োগ, শিক্ষার্থীদের কল্যাণের কথা বিবেচনায় রেখে সমাপনী পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নে অধিকতর সতর্কতা অবলম্বন ও গুরুত্ব আরোপ; যাতে করে খাতা মূল্যায়নে ভুল ভ্রান্তির পরিমাণ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা যায়, বিদ্যালয়ে ওয়াশব্লক-এর স্থান নির্বাচনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তা এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মতামত নেয়া, নিয়মিতভাবে এসএমসি সভার আয়োজন এবং নারী সদস্যের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা ইত্যাদি। সভায় বক্তাগণ উল্লেখ করেন যে, প্রাথমিক শিক্ষায় বর্তমানে ভর্তি এবং পাশের হার ১০০%-এ উন্নীত হলেও গুণগত মানোন্নয়নে এখনো কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জিত হয়নি। তারা শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়নে শিক্ষক, এসএমসিসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান।
প্রাথমিক শিক্ষায় নাগরিক সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি ও সুশাসন চর্চার বিস্তৃতি সাধনে অংশগ্রহণকারী বিদ্যালয় ও শিক্ষা কর্তৃপক্ষের প্রতি সনাক-টিআইবি’র প্রত্যাশা বিষয়ে বক্তব্য রাখেন টিআইবি’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার করুনা কিশোর চক্রবর্তী।

এছাড়াও প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে বিরাজমান সমস্যার সমাধান, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধি এবং সেবার সার্বিক মান উন্নয়নে করণীয় বিষয়ে এসএমসি সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকবৃন্দ মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এবং এ আলোচনায় প্রাপ্ত ইস্যুগুলো নিয়ে পরবর্তীতে সনাকের পক্ষ থেকে শিক্ষা কর্তৃপক্ষের সাথে এ্যাডভোকেসী করা হবে বলে সভায় জানানো হয়।

সভায় বক্তাগণ তাদের বক্তব্যে প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে সনাক এবং টিআইবি’র গৃহিত উদ্যোগের প্রসংশা করেন এবং সরকারের পাশাপাশি এ ধরনের সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার সুপারিশ করেন। তাছাড়া, সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে যার যার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করলে শিক্ষার মানোন্নয়নের পাশাপাশি এক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার চর্চা আরো প্রতিষ্ঠা পাবে বলে তারা মতামত ব্যক্ত করেন।