মিস্টার অ্যান্ড মিসেস চক্রবর্তী

বিনোদন ডেস্ক : বিতর্কের মাঝেই বিয়ে হয়ে গেল বলিউড ও কলকাতার সুপারস্টার নায়ক মিঠুন চক্রবর্তীর ছেলে মহাক্ষয় ওরফে মিমোর। পাত্রী হচ্ছেন মিমোর দীর্ঘ দিনের প্রেমিকা মাদালসা শর্মা। মঙ্গলবার উটির একটি বিলাসবহুল রেস্টুরেন্টে ঘনিষ্ঠজনদের উপস্থিতিতে মিমো ও মাদালসার চার হাত এক করে দেয়া হয়।

মঙ্গলবার বিয়ের আসরে বসেই নববধূ মাদালসার সঙ্গে তোলা কয়েকটি ছবি নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে পোস্ট করেন মিঠুনপুত্র মহাক্ষয় ওরফে মিমো। ক্যাপশনে লেখেন, ‘লেডিস অ্যান্ড জেন্টেলম্যান…মিস্টার অ্যান্ড মিসেস চক্রবর্তী’। শেষে দেন একটি লাভ ইমো।


প্রথমে এই বিয়ের আসর বসেছিল গত ৭ জুলাই। তামিলনাড়ুর নীলগিরি জেলার উধগমন্ডলমে মিঠুনের মালিকানাধীন একটি বিলাসবহুল রেস্টুরেন্টে বিয়ের আয়োজন করা হয়। কিন্তু মিমোর বিরুদ্ধে করা এক তরুণীর ধর্ষণের মামলার ভিত্তিতে বিয়ের দিনেই সেখানে গিয়ে হানা দেয় পুলিশের তদন্তকারী একটি দল। পরে বিয়ে বাতিল করে ফিরে যান কনেপক্ষ।

তবে সম্প্রতি বর ও কনেদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, ‘সেদিন বিয়ে মোটেই বাতিল করা হয়নি। রেজিস্ট্রিসহ বিয়ের যাবতীয় অনুষ্ঠানই পালন করা হয়েছিল। এখন শুধু অতিথি তালিকাটা একটু ছোট করা হয়েছে।’ তবে মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফার বিয়ের আয়োজনে কোনো বিপত্তি না ঘটলেও পুলিশ জানায়, তারা এ মামলার তদন্ত চালিয়ে যাবে।

গত সপ্তাহের সোমবার মিমোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে দিল্লির রোহিণী আদালতে মামলা করেন এক তরুণী। তিনি অভিযোগ করেন, ২০১৫ সাল থেকে মিমোর সঙ্গে তার সম্পর্ক। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে গত চার বছর ধরে মিমো তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক রেখেছেন। আদালতের নির্দেশে পরে এফআইআর দায়ের করা হয়।

এ মামলায় আসামি করা হয়েছে মিমোর মা অর্থাৎ মিঠুনের স্ত্রী যোগিতা বালিকেও। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তরুণী অন্তঃসত্ত্বা জানার পর তাকে জোর করে গর্ভপাত করান যোগিতা বালি। মা-ছেলে নাকি তাকে মৃত্যুর ভয়ও দেখান। এর পরই ওই তরুণী ভয়ে মুম্বাই থেকে দিল্লি চলে যান এবং রোহিণী থানায় গত সোমবার মিমোদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।