মালয়েশিয়ায় নিরবের সাফল্যে শাকিবের অভিনন্দন

বিনোদন প্রতিবেদক : মালয়েশিয়ায় নিরবের সিনেমা ‘বাংলাশিয়া ২.০’ দারুণ দর্শক সাড়া পেয়েছে। যার হাত ধরে মালয়েশিয়ান, চাইনিজ দর্শকদের প্রিয়মুখে পরিণত হয়েছেন নিরব। দেশটির নানা ভাষার গণমাধ্যমও তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এ ছবির সাফল্য ও নিরবের প্রতি সবার আগ্রহ দেখে ‘বাংলাশিয়া ২.০’র প্রযোজক নিরবকে নিয়ে নতুন ছবি নির্মাণের কথাও ভাবছেন।

বিদেশের মাটিতে দেশি কোনো শিল্পীর এই অভাবনীয় সাফল্য-অর্জনে উচ্ছ্বসিত জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খান। তিনি নিরবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

গেল ২৮ ফেব্রুয়ারি মালয়েশিয়ার ১১৬টি হলে মুক্তি পায়া ‘বাংলাশিয়া ২.০’ ছবিটি। প্রথম সপ্তাহেই ছবিটি বাজেটের টাকা ঘরে তুলেছে। ছবির প্রচারণায় মালয়েশিয়াতেও গিয়েছিলেন নিরব। সম্প্রতি মালয়েশিয়ার দর্শকদের ভালোবাসা নিয়ে ফিরেছেন দেশে। সেখান থেকে ফিরে এই তথ্যই দিলেন তিনি।

এদিকে সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির বড় ভাই শাকিব খানের প্রশংসা পেয়ে আনন্দও প্রকাশ করলেন নিরব। তিনি জানান, দেশে ফিরেই শাকিব খানের কাছ থেকে তার ছবির সাফল্যের জন্য অভিনন্দন পেয়েছেন।

নিরব বলেন, ‘মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফেরার পর শাকিব ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হয়। আমার ছবির সাফল্যে তিনি অনেক খুশি হয়েছেন বলেন জানালেন। আমাকে নিয়মিত এমন ভালো কাজের সঙ্গে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। শাকিব ভাই বড় ভাইয়ের মতো। সবসময়ই নানা রকম পরামর্শ দেন, হতাশ হলে সাহস দেন। তিনি দেশের সুপারস্টার। তার কাছে নিজের ছবির প্রশংসা শুনে অনেক ভালো লাগছে।’

এদিকে শাকিব খান বলেন, ‘অন্যদেশের একটি ছবিতে অভিনয় করে আমাদের দেশের একজন নায়ক সফল হয়েছেন। এটা আমাদের জন্য একটা প্রাপ্তি। সিনেমার এই ক্রান্তিলগ্নে নিরব নতুন আশা জাগিয়েছে। তার উচিত নিজের অভিনয়, ক্যারিয়ারের প্রতি আরও মনযোগী হওয়া।’

উল্লেখ্য, ‘বাংলাশিয়া ২.০’ সিনেমায় পাঁচ বছর আগে অভিনয় করেছিলেন নিরব। এ সিনেমায় নিরবের বিপরীতে অভিনয় করেছেন সিঙ্গাপুরের তারকা আতিকা সুহাইমি। ছবিটির শুটিং টানা ৪২ দিন করে শেষ হয়। এরপর ছবিটির ট্রেলারও প্রকাশিত হয়। জাপানের একটি চলচ্চিত্র উৎসবেও ছবিটি প্রদর্শিত হয়।

এরপর ছবিটির ওপর মালয়েশিয়ার সরকার প্রদর্শনী নিষিদ্ধ করে। শুধু মালয়েশিয়ায় নয়, বিশ্বের কোথাও ছবিটি প্রদর্শন করা যাবে না এ রকম একটা আইন হয়। ছবির ৩১টি দৃশ্য মালয়েশিয়ার সরকারের বিপক্ষে যাওয়ায় সরকার ছবিটির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। বেশ কিছু কাটছাঁটের পর ১২ ফেব্রুয়ারি ছবিটির ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। নতুন করে সিনেমার নাম দেয়া হয় ‘বাংলাশিয়া ২.০।’