মন্ত্রী কাদেরের উপন্যাস নিয়ে সিনেমা

বিনোদন ডেস্ক : দেশের একজন নামকরা রাজনীতিবিদ ওবায়দুল কাদের। তিনি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী। জনপ্রতিনিধি হিসেবে তার যেমন সুনাম রয়েছে, তেমনি সাংবাদিক ও লেখক হিসেবেও তিনি সুপরিচিতি। ‘বাংলাদেশের হৃদয় হতে’, ‘পাকিস্তানের কারাগারে বঙ্গবন্ধু’, ‘তিন সমুদ্রের দেশে’, ‘মেঘে মেঘে অনেক বেলা’ ও ‘গাংচিল’সহ গোটা দশেক বই লিখেছেন তিনি।

নতুন খবর হচ্ছে, এবার ওবায়দুল কাদেরের লেখা সেই উপন্যাসগুলোর একটি উঠতে চলেছে রূপালী পর্দায়। ২০১৫ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয় ওবায়দুল কাদেরের ‘গাঙচিল’ উপন্যাসটি। এই উপন্যাস থেকেই চলচ্চিত্র উপযোগী চিত্রনাট্য তৈরি করেছেন বাংলাদেশের মারুফ রেহমান এবং ভারতের প্রিয় চট্টোপাধ্যায়। সেই চিত্রনাট্যে নিয়ে একই নামে চলচ্চিত্র নির্মাণে নামছেন পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল।

শোনা যাচ্ছে, মন্ত্রী কাদেরের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিতব্য এ ছবিতে জুটি বেঁধে অভিনয় করবেন নায়ক ফেরদৌস ও চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা। ফেরদৌস ইতিমধ্যেই তার অভিনয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সম্প্রতি গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘খুবই চমৎকার একটি গল্প। আমার চরিত্রটিও ভালো। শুটিংয়ের অপেক্ষায় আছি। পাশাপাশি নায়িকা হিসেবে পূর্ণিমাকে পেলে সেটি হবে বাড়তি আনন্দ।’

অন্যদিকে পরিচালক নেয়ামুল বলেন, ‘মন্ত্রী মহোদয়ের উপন্যাসটি পড়ে ভালো লেগেছে। আমি তার সঙ্গে কথা বলেছি। তার অনুমতি নিয়েই চিত্রনাট্য তৈরির কাজে নেমে যাই। বর্তমানে চলছে শিল্পী নির্বাচনের কাজ। এখন পর্যন্ত চিত্রনায়ক ফেরদৌসের সঙ্গে আলোচনা চূড়ান্ত হয়েছে। তার সঙ্গে পূর্ণিমাকে রাখতে চাই। জমকালো মহরত অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাকিটা খুব শিগগিরই জানানো হবে।’

তবে এ ব্যাপারে ওবায়দুল কাদেরের পক্ষ থেকে স্পষ্ট কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তিনি বলেছেন, ‘আগে ছবি তৈরি হোক। আলোর মুখ না দেখার আগে আমি এসব নিয়ে কিছু বলব না।’ আগামী নভেম্বর মাস থেকে ‘গাঙচিল’-এর শুটিং শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, নোয়াখালী অঞ্চলে গাঙচিল নামে একটা চর আছে। ওখানে কয়েকটি এনজিও কাজ করে। গাঙচিল এলাকার মানুষকে প্রতিনিয়ত কীভাবে ঝড়, বন্যা আর জলোচ্ছ্বাসের সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে থাকতে হয়, সেসব সংগ্রামের কথাই উঠে এসেছে কাদেরের ‘গাঙচিল’ উপন্যাসে। গল্পটা একটু রোমান্টিক ধাঁচেরও। সেসবের কতটা রূপালী পর্দায় উঠে আসে তার জন্যই এখন অপেক্ষা।

Inline
Inline