মনোনয়ন তৃণমূলের মতামতে: শেখ হাসিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রে দলের তৃণমূলের মতামতকে গুরুত্বের সঙ্গে নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে দল যাকেই মনোনয়ন দিক না কেন, তার পক্ষেই কাজ করতে নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের দ্বিতীয় পর্যায়ের বিশেষ বর্ধিত সভার প্রথম পর্বে শনিবার গণভবনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাদের এই নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা।

সভায় রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের অধীন প্রতিটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত দলীয় চেয়ারম্যান, মহানগরের অধীন সংগঠনের প্রতিটি ওয়ার্ডের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় নির্বাচিত কাউন্সিলার এবং জেলা পরিষদের নির্বাচিত দলীয় সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মনোনয়নের ক্ষেত্রে আমরা তৃণমূলের মতকে প্রধান্য দিয়ে থাকি। অনেক ইউনিয়নের নেতারা মিটিং করে সুন্দর করে আমাদের কাছে প্রস্তাব পাঠান। ওই প্রস্তাবগুলো আমি নিজেই পড়ি এবং তাদের মতামতকে আমরা প্রধান্য দিয়ে থাকি। সংগঠন করতে হলে সেভাবেই করতে হবে।’

‘আগামীতেও সকলের মতামত নিয়ে আমরা মনোনয়ন দেব। ইতিমধ্যে আমরা সার্ভে করে যাচ্ছি। তারপরও আমরা যাকে দিই, আপনাদের ঐক্য বজায় রাখতে হবে। সেটাও আমাদের মাথায় রাখতে হবে।’

‘কাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে সেটা বড় কথা নয়, নৌকা মার্কায় আপনাদের ভোট চাইতে হবে।’

ভোটের আগেই ইউনিয়ন পর্যায়ে দ্বন্দ্ব ও বিরোধ মিটিয়ে ফেলারও নির্দেশ দেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। বলেন, ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই।

সেই সঙ্গে সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে এগুলো জনগণকে বারবার বলার তাগিদ দেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, মানুষ সুখে থাকলে দুঃখের দিনের কথা ভুলে যায়, সে জন্য তাদের স্মরণ করিয়ে দিতে হবে।

‘নৌকার যেন বিজয় হয়। রাজাকার, খুনি, এতিমের টাকা যারা আত্মসাৎকারী, অর্থপাচারকারী, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদকের বিষয়টা প্রচার করবেন।’

‘আমরা যে উন্নয়ন করেছি তা গ্রামগঞ্জের মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিতে হবে। তা এখন থেকে বলতে হবে।’

‘সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলবেন আর উন্নয়ন প্রকল্পগুলো যাতে যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হয় সেদিকে আপনারা লক্ষ্য রাখবেন।’

সভায় দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা আটজন নেতা বক্তব্য দেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ কথা বলেন।

আগামী ৭ জুলাই ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও খুলনা বিভাগের ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে বিশেষ বর্ধিত সভা হবে গণভবনে। এর আগে গত ২৩ জুন বর্ধিত সভায় যোগ দেন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতা এবং দলের জনপ্রতিনিধিরা।