ভারতের কাশ্মিরে জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে পাঁচ সেনাসহ নিহত ১০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রায় ৩০ ঘণ্টা পর জঙ্গি মুক্ত হয়েছে ভারত নিয়ন্ত্রাণাধীন কাশ্মিরের সুঞ্জওয়ান সেনা ক্যাম্প। জঙ্গিদের সঙ্গে গুলি বিনিময়ে ঘটনায় পাঁচ জওয়ান নিহত হয়েছেন। হত্যা করা হয়েছে চার জঙ্গিকেও। সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াইয়ের মাঝে পড়ে নিহত হয়েছেন এক জওয়ানের বাবা। আহত হয়েছেন নয়জন।

জঙ্গি মুক্ত হলেও গোটা এলাকা ঘিরে রাখে জওয়ানরা। চলে তল্লাশি অভিযান। রবিবার সকালেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত। বৈঠক করেন সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে। জম্মু-দিল্লি জাতীয় সড়কের ওপরে সেনা শহর সুঞ্জওয়ান।

সেনা সূত্রে খবর, সেখানেই শনিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে জইশ-ই-মোহাম্মদের ‘আফজাল গুরু স্কোয়াড’-এর জঙ্গিরা হামলা চালায়। শিবিরের পাশের নালা দিয়ে এসে পিছনের দিকের তার কেটে জঙ্গিরা ঘাঁটিতে ঢোকে বলে অনুমান সেনাদের। পিছনের ফটকের রক্ষীর সঙ্গে কিছুক্ষণ গুলি বিনিময়ের পরে সেনাদের পরিবার ঘাঁটির যে অংশে থাকে সে দিকে গা ঢাকা দেয় জঙ্গিরা।

শনিবার সংঘর্ষের প্রথমেই মদনলাল চৌধুরি ও আশরাফ মীর নামে দুই জওয়ান নিহত হন। দুজনেই কাশ্মিরের বাসিন্দা।

শনিবার তিন জঙ্গিকে হত্যা করা গেলেও আরও কয়েকজন জঙ্গি লুকিয়ে থাকার খবর ছিল সেনাবাহিনীর কাছে। ফলে জঙ্গি মুক্ত করার জন্য জারি থাকে তল্লাশি অভিযান। দফায় দফায় চলে গুলির লড়াই চলে।

রবিবার সকাল পর্যন্ত চলে অভিযান। শেষ পর্যন্ত সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ সুঞ্জওয়ান সেনা ক্যাম্পকে জঙ্গি মুক্ত বলে সেনা বাহিনীর তরফে জানানো হয়। উদ্ধার করা হয় বহু বিস্ফোরক।

সেনা সূত্রে খবর, অভিযানের প্রথম থেকেই ঘাঁটির ভিতরে আটকে পড়া সেনাদের পরিবারের সদস্য এবং অন্য সাধারণ মানুষকে রক্ষা করাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। আর সে কারণেই অভিযান শেষ করতে অনেক সময় লাগল বলে প্রাথমিকভাবে জানানো হয়েছে। যদিও সাবধানতা সত্ত্বেও মহিলা ও শিশুসহ দশ জন আহত হয়েছেন। নিহত হন একজন।

অভিযানের প্রথমে সেনা ও কাশ্মির পুলিশের স্পেশ্যাল অপারেশনস গ্রুপ জঙ্গিদের ঘাঁটির এক অংশে কোণঠাসা করে ফেলে। পরে উধমপুর থেকে প্যারা কমান্ডোদের নিয়ে আসা হয়। জঙ্গিদের সঠিক অবস্থান জানতে বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার ও ড্রোনও ব্যবহার করা হয়।

২০০৩ সালে কাশ্মিরের সেনা এই ঘাঁটিতে জঙ্গি হামলায় ১২ জন সেনা নিহত হয়েছিলেন। সাম্প্রতিক অতীতে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে কাশ্মিরের উরি সেক্টরে ভারতীয় জওয়ানদের তাঁবুতে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল আত্মঘাতী জইশ জঙ্গি। ১৮ জন ভারতীয় জওয়ান প্রাণ হারিয়েছিলেন। ভারতীয় সেনার পাল্টা গুলিতে ৪ জঙ্গিও নিহত হয়।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা