বেনাপোলে বন্দর সমস্যায় গণশুনানী বৈঠক

এস এম মারুফ, বেনাপােল প্রতিনিধি : বেনাপােলে ব্যবসা বানিজ্য সম্প্রসারণ ও বন্দরের সমস্যা নিয়ে বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করণের লক্ষে গণশুনানী বৈঠক করেন।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকাল ১১টার সময় বেনাপোল চেকপোষ্টে আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনাল ভবনে কাস্টমস, সি এন্ড এফ, ইমিগ্রেশন, ব্যাংক, গোয়েন্দ সংস্থা, বিজিবি, সাংবাদিক এবং শ্রমিক প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বেনাপোল স্থল বন্দরের পরিচালক প্রদোষ কান্তি দাস এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত অর্থ সচিব আলাউদ্দিন কবির। তিনি বলেন, দেশ আজ ৪৮ বছর আগের দেশ নাই। স্বাধীনতার পর থেকে মানুষের নৈতিকতাও আস্তে আস্তে পরিবর্তনের সাথে দেশে উন্নয়ন অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একটি দেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করতে হলে প্রয়োজন নৈতিকতা বোধ ও সততা। নৈতিকতা ও সততা হলো মানুষের কাজ কর্মের শুদ্ধাচার। দেশের আজ অনেক প্রবৃদ্ধি পেয়েছে। মঙ্গা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ কাটিয়ে দেশ আজ এগিয়ে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে রুপান্তরিত হয়েছে।

উন্মুক্ত গণশুনানীতে অংশগ্রনকারীরা বেনাপোল বন্দরের বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরেন। অংশগ্রনকারীরা বলেন, বেনাপোল বন্দরে নেই প্রয়োজনীয় ইকুইপমেন্ট, নেই ফায়ার সার্ভিসের পর্যাপ্ত সরঞ্জাম, চুরি রোধে নেই কোন সিসি ক্যামেরা। এমনকি নেই প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা কর্মী।

এছাড়া বৃহত্তর এই বন্দরে প্রায় আড়াই হাজার শ্রমিক কাজ করে সেখানে নেই কোন হাসপাতাল অ্যাম্বুলেন্স এর ব্যবস্থা। বন্দরে কাস্টমস, বিজিবি ও বন্দরের লোক একই পণ্য তিন জায়গা এন্ট্রি করায় একদিকে যেমন আমদানি কমে যাচ্ছে তেমনি অন্যদিকে সময়ও নষ্ট হচ্ছে। এর আগে শুধু কাস্টমস এন্ট্রি করায় এই বন্দরে ৭ থেকে সাড়ে সাতশত গাড়ি পণ্য আমদানি হত। বর্তমানে তা কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ৩ শত ট্রাক।

অংশগ্রনকারীরা আরও বলেন, বন্দরে জায়গা সংকটের কারণে যানজট হচ্ছে। শুনেছিলাম ১৭৫ একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে যানজট নিরসনে। কিন্তু সেই জামির ফাইল এখনো মন্ত্রনালয়ে বন্ধি রয়েছে। বেনাপোল বন্দর যানে এখানে জমি প্রয়োজন। সময়মত জমি না নিয়ে বর্তমানে তিনগুন দামে জমি অধিগ্রহণ করতে হচ্ছে এতে বন্দরের অর্থ বেশী খরছ হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, সহকারি পরিচালক প্রশাসন জাকির হোসেন, শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল, প্রশাসনিক অফিসার আবুল হোসেন, স্থল বন্দরের সদস্য জাহিদুল ইসলাম, কাস্টমস সহকারী কমিশনার উত্তম চাকমা, বন্দরের উপ-পরিচালক আব্দুল জলিল, মামুন, বেনাপোল সি এন্ড এফ এজেন্ডের সভাপতি মফিজুর রহমান স্বজন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহসিন মিলন, বন্দর বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দিন, শার্শা উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান প্রমুখ।