বেনাপোলে মাদক বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

এস এম মারুফ, বেনাপোল প্রতিনিধি : ‘মাদককে না বলুন, জীবনকে ভালবাসুন, মাদক থেকে দূরে থাকুন’ এই শ্লোগান নিয়ে মাদক ব্যবসায়ী, মাদক গ্রহণকারী, ইমাম, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবকদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করতে স্থলবন্দর বেনাপোলে মাদক বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২৮ জানুয়ারি) বিকালে শার্শা উপজেলা মাদক নির্মূল কমিটির উদ্যোগে স্থানীয় বেনাপোল বাজার সোনালী ব্যাংক চত্বরে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

শার্শা উপজেলার চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব সিরাজুর হক মঞ্জুর সভাপতিত্বে শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামানের পরিচালনায় ও অহিদুল হক পটুর সঞ্চালনায় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, যশোর-১ (৮৫ শার্শা) আসনের একাধিকবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দীন এমপি।

যশোর পুলিশ সুপার বিপিএম, পিপিএম, মঈনুল হক, অধিনায়ক খুলনা-২১ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন লেঃ কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ছুরত আলম র‌্যাব-৬ যশোর, নাভারন সার্কেল এএসপি জামাল আল নাসের, শার্শা উপজেলা নিবার্হী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল, ওসি শার্শা থানা এম মশিউর রহমান, ওসি বেনাপোল পোর্ট থানা শেখ আবু-সালেহ মাসুদ করিম বক্তব্য রাখেন।

উক্ত সমাবেশে প্রধান অতিথি শেখ আফিল উদ্দীন বলেন, ‘মাদক মানুষকে ও পরিবারকে ক্ষত বিক্ষত করে তোলে। তাই মাদক নামে আর কোন শব্দ থাকবে না শার্শা উপজেলায়।’ তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে যে সকল মাদক ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কারনে পুলিশের সাথে র‌্যাবের সাথে এবং নিজেরা মাদক ব্যবসা নিয়ে গুলা গুলিতে নিহত হয়েছে, তাদের মতো যেন আর কেউ নিহত না হয়। যার বাড়ি যে মাদক আছে তা আজ রাত্রে ফেলে দিয়ে অন্য পেশায় চলে যান।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা মাদক ছেড়ে চলে আসেন আমি আমার জুট মিলে আজই চাকরি দিব। বেনাপোল বন্দরে কাজ দিব। তবু আপনারা এ ব্যবসা ছেড়ে দেন।’

এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান মেম্বারদের উদ্দেশ্যে যশোর-১ আসনের এমপি বলেন, ‘আপনারা এলাকায় যেয়ে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মিটিং করেন এবং তাদের আজকের সমাবেশের বার্তা পৌঁছায় দেন। কারণ মাদক ব্যবসা করে যদি একটি পরিবার থেকে সেই উপার্জনকারী হারিয়ে যায় তাহলে সেই পরিবারটি ধ্বংস হয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘বেনাপোলের ভবারবেড়. সাদিপুর, গাতিপাড়া, দৌলতপুর পুটখালী, বাহদুরপুর। এবং শার্শার গোগা, কায়বা, রুদ্রপুর, লক্ষনপুর শিকারপুর এলাকায় মাদক ব্যবসা হয় তার তথ্য আমার কাছে আছে। এ এলাকার মাদক ব্যবসায়ীরা আজ থেকে সাবধান হয়ে যান নইলে আমি বাধ্য হবো আপনাদের তথ্য প্রশাসনের কাছে দিতে।’

‘সারা দেশে ১৮ লাখ মাদকসেবী রয়েছে, যার প্রায় পাঁচ লাখ মহিলা। সর্বনাশা মাদকের মরণ ছোবল থেকে সমাজ তথা দেশকে রক্ষা করতে সমাজের সকল স্তর থেকে সবাইকেই একযোগে কাজ করতে হবে। আমরা সবাই জানি মাদকাসক্ত থেকে ফিরে সুস্থভাবে নতুন করে বেঁচে থাকার জন্য দেশের বিভিন্ন জায়গায় সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে কয়েকশত নিরাময় কেন্দ্র খোলা হয়েছে’ বলেন এ সংসদ সদস্য।

শেখ আফিল উদ্দীন আরও বলেন, ‘তৃতীয় বার সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর মাদক নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম চলবে’।

উপস্থিত জনগণের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমরা নির্বাচিত হওয়ার পর আমাদেরকে শপথ করানো হয় যেন রাষ্ট্রবিরোধী ও সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ না করি। যে ইউনিয়নে মাদক ব্যবসায়ী পাওয়া যাবে তখন আপনারা ওই ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিকে জবাবের আওতায় নিয়ে আসবেন। প্রত্যেক ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাদক বিরোধী মিটিং সমাবেশ করতে বলেন’।

মনে রাখবেন রাইফেলের গুলিও আমাকে মাদক বিরোধী থেকে ফেরাতে পারবে না। তাই মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবীদের হুশিয়ারী উচ্চারন করে বলেন, মাদক ভুলে যান নইলে আজ থেকে আপনাদের আর কেউ বাঁচাতে পারবে না। মাদক ব্যবসায়ীদের বাড়ীঘর গুড়িয়ে দেয়া হবে। শার্শা উপজেলার সকল মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা আমার হাতে রয়েছে। শেষ বারের মতো আমি আপনাদের বলে গেলাম মাদকের বিষয়টি শেষ দেখে ছাড়বো। মাদকের বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জিরো টলারেন্স ঘোষনা করেছেন’।

এসপি ও বিজিবির সিও এর সংযোগীতা কামনা করেন। আজকের এই মাদক বিরোধী সমাবেশ আমার জীবনে প্রথম ও শেষ সমাবেশ যোগ করেন এ সাংসদ।

তিনি মাদক ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, ‘যশোর অঞ্চলের মাদক ব্যবসায়ীদের যে ৪০ জনের তালিকা রয়েছে যদি ভাল পথে ফিরে না আসেন আপনিও সেই লিষ্টে ঢুকে যাবেন। আমি দৃঢ প্রতিজ্ঞাবদ্ধ মাদকের বিরুদ্ধে। বক্তব্যের মাঝে একসময় তিনি উপস্থিত সকলকে মাদক বিরোধী শপথ বাক্য পাঠ করান। সবশেষে প্রধান অতিথি সবাইকে ধন্যবাদের সহিত তার বক্তব্য শেষ করেন।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে ও মাদক ব্যবসায়ীদের এ পথ থেকে সরে আসার জন্য কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারন করা হয়। পুলিশ সুপার মইনুল হোসেন বলেন, শার্শা উপজেলাকে মাদক মুক্ত করতে যে কোন ধরনের পদক্ষেপ তিনি নিতে প্রস্তুত।

এসময় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, যশোর জেলার শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আসিফ উদ-দৌলা অলোক সরদার, শার্শা উপজেলার যুগ্ম সম্পাদক সালেহ আহমেদ মিন্টু, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, শার্শা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি অহিদুজ্জামান অহিদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, আলেয়া ফেরদৌস, শার্শা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সোয়ারাব হোসেন, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, কায়বা ইউপি চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ টিংকু, লক্ষনপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারা খাতুন বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব এনামুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দীন, একুশে টিভি প্রতিনিধি জামাল হোসেন, সাদিপুর পৌর কাউন্সিলর আহাদুজ্জামান বকুল, শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন রাসেল, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন জোয়ার্দার, সেক্রেটারী তৌহিদুল ইসলাম, পৌর সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুলফিকার মন্টু, সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মী, সূধী সমাজ, অবিভাবক, শিক্ষক-শিক্ষিকা, কোমলমতী শিক্ষার্থী ও সাধারণ জনগণ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন নাভারণ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ইব্রাহীম খলীল।