বেকারত্ব নির্মূলে উচ্চশিক্ষায় যে পরিবর্তনের কথা বললেন সচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক : ‘বর্তমান বিশ্বের সঙ্গে টিকে থাকতে হলে দেশের বিপুল জনসংখ্যাকে জনসম্পদে রূপান্তর করতে হবে। এ জন্য উচ্চশিক্ষায় একটি বিশ্বমানের সিলেবাস প্রণয়ন করতে হবে। তবেই দেশে মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়ন সম্ভব হবে। উচ্চশিক্ষা কাউন্সিলের কাজ হবে তা নিয়ন্ত্রণ করা।’

বলছিলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের উচ্চশিক্ষার ভবিষ্যত কার্যপ্রণালির খসড়া উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এই মতামত দেন।

সোহরাব হোসাইন বলেন, বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা এগিয়ে যাচ্ছে। তবে এটি সন্তোষজনক নয়, আমাদের বিপুল জনসংখ্যাকে এগিয়ে নিতে হলে তাদের জনসম্পদে রূপান্তর করতে হবে। তবেই দেশে বেকারত্বের হার নির্মূল করা সম্ভব হবে। এ জন্য আমাদের উচ্চশিক্ষা স্তরে যুগোপযোগী সিলেবাস প্রণয়ন করতে হবে। সেটি অনুসরণ করা হচ্ছে কি না, উচ্চশিক্ষা কাউন্সিলের সদস্যরা তার তত্ত্বাবধান করবেন।

কার্যপ্রণালি প্রসঙ্গে ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীনতার ৪৭ বছর পরে উচ্চশিক্ষা কাউন্সিল গঠন করা হয়েছে। উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নে একটি কার্যপ্রণালি তৈরি করা হয়েছে। সেখানে একাডেমিক কোর্সের বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তার উপর ভিত্তি করে একটি মানসম্মত সিলেবাস প্রণয়ন করা হবে। এই কার্যপ্রাণালির উপর মতামত নিয়ে তা বাস্তবায়ন করা হবে।

চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে কৃষি, শিক্ষা ও সাক্ষরতার হারে বিপ্লব ঘটেছে। দক্ষ ও অভিজ্ঞ করে নতুন প্রজন্মকে গড়ে তুলতে হবে। সেই লক্ষে মানসম্মত শিক্ষা প্রদান জরুরি।

উচ্চশিক্ষার ভবিষ্যৎ কর্মপ্রণালিতে মতামত প্রদান অনুষ্ঠানটি দিনব্যাপী হয়। সকাল সেশনে এটি উদ্বোধন করা হয়। এতে অংশগ্রহণ করেন বিভিন্ন পাবলিক-প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা। তারা এ খসড়ার উপর মতামত পেশ করেন।