বাজারের সেরা পাঁচ স্মার্টফোন

বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক : বাজারে নিত্যনতুন ফোন আসছে। এসব ফোনের মধ্যে সেরা ফোন কোনটি? ফোনের কনফিগারেশনই বলে দেবে আপনি কোন ফোনটি কিনবেন। জেনে নিন এই সপ্তাহে আন্তর্জাতিক বাজারে অবমু্ক্ত হওয়া সেরা পাঁচ ফোন সম্পর্কে।

রেডমি ওয়াই টু
রেডমি ওয়াই টু একটি চাইনিজ ফোন। এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান শাওমি। এতে আছে ৫.৯৯ ইঞ্চির এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লের অ্যাসপেক্ট রেশিও ১৮:৯। ফোনটি পরিচালনার জন্য রয়েছে জনপ্রিয় স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ চিপসেট।

দুইটি র‌্যাম ভার্সনে ফোনটি মিলছে। এগুলো হলো ৩ জিবি র‌্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজ। এবং ৪ জিবি র‌্যাম এবং ৬৪ জিবি স্টোরেজ।

রেডমি মি ওয়াই টুতে রয়েছে ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা সেটাপ। এই ক্যামেরার প্রাইমারি সেন্সর ১২ মেগাপিক্সেল। সঙ্গে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল সেকেন্ডারি সেন্সর। আর রয়েছে সেলফি তোলার জন্য একটি ১৬ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স সাপোর্ট থাকবে এই ক্যামেরায়। এছাড়াও ফোরজি, ওয়াইফাই, ব্লুটুথ জিপিএস কানেকটিভিটি রয়েছে।

ডুয়েল সিমের এই ফোনে ৩০৮০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি সংযোজন করা হয়েছে। ফোনে রয়েছে অ্যানড্রয়েড ওরিও ৮.১। এর উপরেই চলবে কোম্পানির নিজস্ব স্কিন।

ওয়ান প্লাস সিক্স
ডুয়াল সিম ওয়ানপ্লাস ৬ এ প্রিলোডেড থাকবে লেটেস্ট অ্যানড্রয়েড ওরিও ৮.১। ওয়ানপ্লাস ৬ এ রয়েছে ৬.২৮ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস অপটিক অ্যামোলিড ডিসপ্লে।

ওয়ানপ্লাস ৬ এর ভিতরে রয়েছে লেটেস্ট স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ প্রসেসর। দুইটি ৬ ও ৮ জিবি র‌্যাম ভার্সনে ফোনটি পাওয়া যাবে। গ্রাফিক্সের জন্য আছে অ্যাড্রিনো জিপিইউ।

লেটেস্ট ওয়ানপ্লাস ৬ এ রয়েছে ডুয়াল রিয়াল ক্যামেরা সেট আপ। প্রাইমারি সেন্সরটি ১৬ মেগাপিক্সেল ও সেকেন্ডারি ২০ মেগাপিক্সেল সেন্সর রয়েছে এই রিয়ার ক্যামেরায়। প্রাইমারি ক্যামেরাতে অপ্টিক্যাল ও ইলেকট্রনিক দুই ইমেজ স্টেবিলাইজেশনের সুবিধা রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে একটি ১৬ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা।

এই ক্যামেরায় তোলা যাবে ৪৮০ ফ্রেম পার সেকেন্ডে স্লো মোশান ভিডিও। নতুন আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্সের মাধ্যমে ফ্রন্ট ক্যামেরায় তোলা যাবে পোট্রেট মোড। এছাড়াও এই ক্যামেরায় রয়েছে ফেস আনলকের ফিচার। এর মাধ্যমে মাত্র ০.৪ সেকেন্ডে আনলক হয়ে যাবে আপনার ফোন।

ওয়ানপ্লাস ৬ এ রয়েছে ৩৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। এর সঙ্গে রয়েছে কোম্পানির জনপ্রিয় ড্যাশ চার্জিং টেকনোলজি। কোম্পানির দাবি মাত্র ৩০ মিনিটের চার্জে এই ফোন সারাদিন চলতে সক্ষম।

রিয়েল মি ওয়ান
গেল সপ্তাহে বাজারে এসেছে এই ফোন। ফোনটি ফাইবার বডিতে তৈরি। যার ফিনিশ খানিকটা হীরের মতো দেখতে। নতুন এই ফোনের সামনে রয়েছে ৬ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস এলসিডি ডিসপ্লে। ডিসপ্লের অ্যাসপেক্ট রেশিও ১৮:৯। ৪০৩ পিপিআই এর এই ডিসপ্লে তে দারুন শার্পনেস পাওয়া যাবে।

ফোনের ভিতরে রয়েছে মিডিয়াটেক এমটি৬৭৭১ প্রসেসর। এতে প্রিলোডেড রয়েছে লেটেস্ট অ্যানড্রয়েড ওরিও ৮.১। এছাড়া উপরেই চলবে কোম্পানি নিজস্ব কালারওএস ৫.০। ফোনের ব্যাটারি ৩৪১০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের।

রিয়েল মি ওয়ানে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা। এই ক্যামেরায় পাওয়া যাবে ডিএসএলআর-এর মতো বোকে এফেক্ট। এছাড়াও ফোনটিতে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা।

নতুন এই ফোনে রয়েছে ফেস আনলকের মতো আধুন সব স্মার্টফোনের ফিচার। যদিও ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সার থাকছে না নতুন রিয়েলমি ১ এ।

রেডমি ফাইভ
এই ফোনে আছে ৫.৭০ ইঞ্চির এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। এর ভিতরে আছে একটি ১.৮ গিগাহার্জের অক্টাকোর প্রসেসার। এর সঙ্গে রয়েছে ৩ জিবি র‌্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজ। যা মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে বাড়িয়ে নেয়া যাবে।

ছবি তোলার জন্য ফোনটিতে রয়েছে ১২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। সেলফি ক্যামের ৫ মেগাপিক্সেলের।

মটো জি সিক্স
এই ফোনে আছে ৫.৭ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। এটি ১.৮ গিগাগার্জের স্ন্যাপড্রাগন ৪৫০ প্রসেসর চালিত। গ্রাফিক্সের জন্য অ্যাড্রিনো ৫০৬ গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট সংযোজন করা হয়েছে।

৩ ও ৪ জিবি র‌্যামের এই ফোনে বিল্টইন মেমোরি আছে যথাক্রমে ৩২ ও ৬৪ জিবি।

Inline
Inline