বলিউড নাম বাতিলের দাবি!

বিনোদন ডেস্ক : বিশ্বের অন্যতম বড় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে ধরা হয় বলিউডকে। ১৯১০ সালে যাত্রা শুরু হওয়া হিন্দি ছবির এ জগতটি সগর্ভে টিকে আছে ১০৮ বছর ধরে। এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যে বলিউড নামটি নিয়ে কাউকে মাথা ঘামাতে দেখা যায়নি বা কারো আপত্তির কথাও শোনা যায়নি। সম্প্রতি সেই সাহসই দেখিয়েছেন ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সাধারণ সম্পাদক ও পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।

সম্প্রতি দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে ‘বলিউড’ শব্দটি নিয়ে তার আপত্তির কথা জানিয়েছেন মোদি সরকারের আস্থাভাজন এই নেতা। খুব শিগগির ‘বলিউড’ শব্দটি ব্যবহার না করার অনুরোধ জানিয়ে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী রাজ্যবর্ধন রাঠৌরকে চিঠি দেয়ার কথাও স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন বিজয়বর্গীয়।

একশ বছরেরও বেশি সময় পরে এই ধরণের সাহস দেখানোর পথিকৃত অবশ্য ভারতের নামজাদা পরিচালক ও প্রযোজক সুভাষ ঘাই। হিন্দি ছবির ইন্ডাস্ট্রি বোঝাতে বলিউড শব্দটি ব্যবহার না করার আর্জি তুলে কয়েকদিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় #DontCallItBollywood দাবি তুলেছিলেন তিনি। সেই দাবি নিয়ে সম্প্রতি বিজেপি নেতা বিজয়বর্গীয়র সঙ্গে সাক্ষাত করেন সুভাষ। এরপর লাফিয়ে ওঠেন বিজেপির এই নেতাও।


দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেয়া সাক্ষাতকারে বিজয়বর্গীয় বলেন, ‘সুভাষ সম্প্রতি বিজেপি হেডঅফিসে আমার সঙ্গে সাক্ষাত করেছিলেন। তখন উনার থেকেই জানতে পারি, বিবিসির তরফ থেকে হিন্দি সিনেমাকে বলিউড নাম দেয়া হয়েছিল। কারণ, ওরা দেখাতে চাইত যে, আমরা হলিউড সিনেমাকে নকল করি। সেই নামই গ্রহণ করে নিই আমরা। কিন্তু এটা চলতে দেয়া যায় না।’

তিনি পরামর্শ দেন, ‘নাম হওয়া উচিত হিন্দি, বাংলা বা ভোজপুরী ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি। অন্যের থেকে চুরি করে নেয়া নাম নয়।’ সত্যজিৎ রায় থেকে দাদাসাহেব ফালকে প্রসঙ্গ টেনে বিজেপি নেতা বিজয়বর্গীয় বলেন, ‘সে সময়ও সিনেমার ব্যবসা বিলিয়ন ছুঁয়েছিল। তার জন্য ইংরেজি ছবির নকল করতে হয়নি।’ এখন এই জল কতদূর গড়ায় সেটাই দেখার।