বলপ্রয়োগে শিক্ষার্থীদের দমানো যাবে না: মওদুদ

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের বলপ্রয়োগ করে দমানো যাবে না বলে মনে করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ। শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি মেনে নিতে তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

শনিবার রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় বক্তব্য দিচ্ছিলেন মওদুদ। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, যুবদলের সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, মামুন হাসান, ছাত্রদলের ইসহাক সরকার ও খন্দকার এনামুল হকের মুক্তির দাবিতে সম্মিলিত ছাত্র ফোরামের উদ্যোগে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

গত রবিবার রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে একটি বাসের চাপায় শহীদ রমিজউদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী মারা যায়। এর পরদিন থেকে নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছে। এই আন্দোলনে অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে রাজধানী ঢাকা। গত কয়েক দিন ধরে আন্দোলন শান্তিপূর্ণ হলেও শনিবার রাজধানীর কয়েকটি স্থানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে।

শিক্ষার্থীদের ওপর শক্তি প্রয়োগ করলে দেশের মানুষ রুখে দাঁড়াবে বলে হুঁশিয়ারি দেন মওদুদ আহমদ। বলেন, ‘এর পরিণতি ‍শুভ হবে না। একদিকে আপনারা (সরকার) বলছেন শিক্ষার্থীদের দাবি যুক্তিযুক্ত, তাদের দাবি মেনে নেওয়া হবে। অন্যদিকে সরকারের মন্ত্রীর অধীনে যে সংগঠন নিয়ন্ত্রিত সেই সংগঠন ধর্মঘট ডেকেছে কিশোর-কিশোরীদের বিরুদ্ধে দাঁড় করানোর জন্যে। এর চাইতে হীন ষড়যন্ত্র আর কী হতে পারে?’

মওদুদ আহমদ বলেন, ‘শিশু-কিশোরদের ওপর দমন-পীড়ন বন্ধ করুন। দমননীতি দিয়ে এই শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্তিমিত করা যাবে না, তাদের ঠান্ডা করা যাবে না। আমরা বলে দিতে চাই, পরিবহন ধর্মঘট দিয়ে শিশু-কিশোরদের প্রতিহত করার যে ষড়যন্ত্র সরকার গ্রহণ করেছে, ষড়যন্ত্রমূলক যে কর্মসূচি নিয়েছে সেটাকে আমরা ধিক্কার জানাই।’

অঘোষিত ধর্মঘটের ফলে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘এই পরিবহন ধর্মঘট সরকারের মন্ত্রীর অনুপ্রাণিত সংগঠনের ধর্মঘট। এই ধর্মঘটের কারণে জনগণের যে দুর্ভোগ হচ্ছে সেজন্য সরকারই দায়ী।’

মওদুদ বলেন, ‘মন্ত্রীরা একদিকে বলছেন, শিক্ষার্থীদের দাবি যুক্তিযুক্ত আর অন্যদিকে পরিবহন শ্রমিকদের রাস্তায় নামিয়েছেন, ছাত্রলীগকে এখন রাস্তায় নামিয়েছেন, পুলিশকে এখন রাস্তায় নামিয়েছেন। শিশু-কিশোরদের ওপর পুলিশকে দিয়ে হামলা চালিয়েছেন। ঠিক আগের মতো। কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর যেরকম ব্যবহার করেছে আজকে এই কিশোর শিক্ষার্থীদের ওপরও একই রকম ব্যবহার সরকার করছে। আজকে এই সরকারকে কোনো মানুষ ও শিক্ষার্থীরা বিশ্বাস করে না।’

সভায় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সহ-প্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম আলীম, নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক শিকদার প্রমুখ বক্তব্য দেন।