বটিয়াঘাটায় পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

মহিদুল ইসলাম শাহীন, বটিয়াঘাটা (খুলনা) থেকে : উপজেলার সুরখালী ইউনিয়নের রায়পুর গ্রামের পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ সেলিনা আক্তার (২৭) কে পিটিয়ে আত্নহত্যার অভিযোগ উঠেছে।এ বিষয় তার ভাই সুরখালী গ্রামের ওলিয়ার মালি বাদী হয়ে রায়পুর গ্রামের নকিব উদ্দিনের পুত্র সবুজ শেখ (৩০),নকিব উদ্দিন শেখ (৫৫), রাশিদা বেগম (৪৮) ও সেলিনা বেগম (৩৬) কে আসামী করে গত ৮ তারিখে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন যার নং ০৫/৫৭।
মামলার বিবরনে জানা যায়, সুরখালী গ্রামের আব্দুর রহিম মালির মেয়ে সেলিনা আক্তারের সাথে একই উপজেলার রায়পুর গ্রামের নকিব উদ্দিন শেখের পুত্র সবুজ শেখের সাথে ২০১১ সালে বিবাহ হয়। বিবাহিত জীবনে তাদেরে সংসারে নাঈম (৪) নামের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। জানাগেছে, বিবাহের পর থেকে আসামীরা যৌতুকের কারনে বিভিন্ন সময় শারিরীক ও মানুষিক নির্যাতন করতো। বিবাহের পর থেকে এবিষয় স্হানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বর, গন্যমান্য ব্যক্তিদের সমন্বয় একাধীক বার শালিস বৈঠক হয়েছে। এমনকি আসামী সবুজকে যৌতুক স্বরুপ একটি নছিমন গাড়ী কিনে দিলেও অন্তঃ সত্ত্বা সেলিনার শেষ রক্ষা হোলনা। গত ৫ এপ্রিল সকাল ১০ টায় সেলিনাকে তার বাবার বাড়ী থেকে ৭০ হাজার টাকা যৌতুক নিয়ে আসতে বলে কিন্ত সে রাজি না হওয়ায় আসামীরা ৪ জনে মিলে অন্তঃ সত্ত্বা বধুকে পেটে লাথি গোতা মেরে মারাত্মক জখম করে। এসময় তার বাবার বাড়ীর লোকজন এসে প্রথমে বটিয়াঘাটা হাসপাতালে ভর্তিকরে কিন্ত অবস্থা খারাপ দেখে দ্রুত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে গত ৭ তারিখে দুপুরে দিকে সেলিনা মৃত্যু হয়। এ বিষয় ৪ জনের নামে মামলা হলেও কোন আসামীকে পুলিশ আটক করতে পারেনি। সুরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আঃ হাদী সরদার বলেন, আমি ওদের সাংসারিক জীবনের দ্বন্দ্ব কলহবেশ কয়েক বার মিমাংসা করার চেষ্টা করেছি কিন্ত বার বার ব্যর্থ হয়েছি। তবে সব সময় যে ঐ মেয়েটিকে নির্যাতন করতো এর কোন ভুল নেই। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই। এলাকা বাসি এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানান। অন্যদিকে এলাকার টাউট দালাল প্রকৃতির কিছু লোক ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।