বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশের ক্রীয়াঙ্গনকে ধ্বংসের পথে নিয়ে গেছে: দীপু মনি

এম এম কামাল, চাঁদপুর থেকে : পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, চাঁদপুর-৩ অাসনের সংসদ সদস্য অালহাজ্ব ডাঃ দীপু মনি এমপি বলেছেন, এই ফুটবল খেলার অায়োজনের মধ্য দিয়েই অামরা নিজেদের সরব অবস্থান তৈরি করেছি। ‘স্বাধীনতা বিরোধীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরই এই দেশের ক্রীয়াঙ্গনকে ধ্বংসের পথে নিয়ে গেছে।’ কিন্তু মুজিব কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের ক্রীয়াঙ্গনে স্বস্থি ফিরে এসেছে। যেই নারীদের ওরা(৭১ এর স্বাধীনতা বিরোধীরা)ঘরে বসিয়ে রেখে অত্যাচারের পরিকল্পনা করেছে। এখন সেই নারীরাই ক্রিকেট, ফুটবল খেলায় অংশ নিয়ে দেশের সম্মান বৃদ্ধি করেছে।’

আজ রবিবার সকাল ১১টায় চাঁদপুর স্টেডিয়ামে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জেলা প্রশাসনের অায়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট(অনুর্ধ্ব-১৭)-২০১৮ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি অারো বলেন, ‘স্বাধীনতার বিরোধী শক্তিরা এই জাতির পিতাকে একদিন নিষিদ্ধ করেছিলো! তাঁকে জেলে অাটকে রেখে এদেশকে নেতৃত্বহীনতায় ফেলে লক্ষ লক্ষ মা বোনের ইজ্জত কেরে নিয়েছিলো। তারা(স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি) অামাদের পাকিস্তানের অন্ধকারে নিয়ে যেতে চেয়েছিলো। এরাই ৭১,৭৫ এর খুনি। ওরা পাকিস্তানের দালাল। তাই এই বঙ্গবন্ধু টুর্নামেন্টের অায়োজনের মধ্য দিয়ে অামাদের খেলাধূলাকে অারো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।’

দীপু মনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর নামে এই যে সারা দেশে একেবারে ইউনিয়ন, উপজেলা, তৃনমূল পর্যায় থেকে খেলা শুরু হয়ে গেছে তার জন্য অামি চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ সংশ্লিষ্টদের সক্রিয়তার জন্য ধন্যবাদ জানাই। তিনি অারো বলেন, এই খেলার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর অাদর্শ ত্যাগ সম্পর্কে সবাই ভালো ভাবে জানবে। তাই খেলাকে খেলা হিসেবে নিয়ে নতুন করে নেতৃত্বদান ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নৌকার জন্য অাগামী নির্বাচনে সবাইকে কাজ করতে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

এ সময় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান। সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, এই খেলার অায়োজনের মধ্য দিয়ে অামরা দেখাতে চাই কিভাবে বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ শুরু হয়ে গেছে। সোনার বাংলা বিনির্মাণে অামরা সকলে ঐক্যবদ্ধ থেকে কাজ করে যাবো। এই খেলার মধ্য দিয়ে সেটিই প্রদর্শিত হবে।

চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবুর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম। তিনি বলেন, ‘যারা খেলাধূলার বিরোধীতা করে তারা জঙ্গি। দেশকে মাদক, বাল্য বিবাহ, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস থেকে মুক্ত রাখতে খেলাধূলার বিকল্প নেই। বর্তমানে খেলাধূলায় অর্থ, সম্মান ,পরিচিতি সবই অাছে। তাই জাতির পিতার নামে অায়োজিত এই খেলার মধ্য দিয়ে অামরা সোনার বাংলা বিনির্মাণের কারিগর হিসেবে সবাই অংশ নিবো।’

এ সময় অারো উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মোহাম্মদ শওকত ওসমান, চাঁদপুর প্রেস ক্লাব সভাপতি ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী, সাধারণ সম্পাদক মির্জা জাকির, জেলা ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি জাহিদুল ইসলাম রোমান, চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ইব্রাহীম খলিল, জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা(ভারপ্রাপ্ত) জাহাঙ্গীর হোসেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অায়োজনের উপ-কমিটির সম্পাদক সাহির হোসেন পাটওয়ারী, জেলা অাওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটোয়ারী, চাঁদপুর পৌরসভার প্যাণেল মেয়র সিদ্দিকুর রহমান ঢালী, ফরিদা ইলিয়াছ প্রমুখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরুতে পবিত্র কুরআন তেলোয়াত করেন মাওলানা মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম এবং গীতা পাঠ করেন বিমল চন্দ্র দে।

পরে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ডাঃ দীপু মনিসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করেন। এবং অামন্ত্রিত অতিথিরা পুনাক ও শিশু একাডেমির শিল্পীদের ডিসপ্লে পদর্শনী দেখেন এবং অংশগ্রহনকারী দলের খেলোয়াড়দের সাথে পরিচিত হন।

হাজারো দর্শকের উপস্থিতিতে উদ্বোধনী ফুটবল খেলায় চাঁদপুর পৌরসভা ৩-১ গোলের ব্যবধানে চাঁদপুর সদর’কে পরাজিত করে।

১৬ থেকে ২২ তারিখের একই ভ্যানুতে পরবর্তী খেলা গুলো হলো

১৭ সেপ্টেম্বর দুপুর ২টা ৪০মিনিটে ২য় পর্বের এ-১ এর খেলায় কচুয়া উপজেলার মুখোমুখি হবে মতলব(দঃ) উপজেলা।

একই দিন এ-২ এর খেলায় বিকাল ৪টা ২০মিনিটে ফরিদগঞ্জ উপজেলার মুখোমুখি হবে হাইমচর উপজেলা।

পরদিন ১৮ সেপ্টেম্বর এ-৩ এর খেলায় হাজিগঞ্জ উপজেলার মুখোমুখি হবে শাহারাস্তি উপজেলা।

একই দিন বিকাল ৪টা ২০মিনিটে এ-৪ এর খেলায় মতলব(উঃ) উপজেলার মুখোমুখি হবে ম্যাচ-এ বিজয়ী।

১৯ সেপ্টেম্বর এ-৫ এর খেলায় দুপুর ২টা ৪০মিনিটে ৩য় পর্বের সেমিফাইনাল খেলায় ম্যাচ এ-১ বিজয়ীর মুখোমুখি হবে ম্যাচ এ-২ বিজয়ী।

একই দিন বিকাল ৪টা ২০মিনিটে এ-৬ এর খেলায় ম্যাচ এ-৩ বিজয়ীর মুখোমুখি হবে ম্যাচ এ-৪ এর বিজয়ী।

নকাউট পর্বের এ টুর্নামেন্টের ফাইনাল ২২ সেপ্টেম্বর ম্যাচ এ-৫ বিজয়ী এবং ম্যাচ এ-৬ বিজয়ীর মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে।

এবারের খেলায় সর্বমোট ব্যায় নির্ধারণ করা হয়েছে প্রায় ৩ লক্ষ ৮৭ হাজার টাকা।

উল্লেখ্য, এই খেলায় অংশ নিয়ে যেসব খেলোয়াড় ভালো খেলবেন তাদের নিয়ে জেলা পর্যায়ের ১৮ সদস্যের দল বাছাই করা হবে।

Inline
Inline