ফুঁসে উঠছে হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক, ঢাকা : গতকাল ৩রা অগাস্ট, শুক্রবার বিকেল ৪.৩০ মিনিটে দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মাদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবির) ইঞ্জিনিয়ার অনুষদের লেভেল-৪ এর শিক্ষার্থী আবিদ শাহরিয়ার মারুফকে সুইহারী মাইক্রোস্ট্যান্ডের সামনে মারধর করছে দিনাজপুর মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্যগন।
বাস চাপায় নিহত দুই শিক্ষার্থী বিচারের দাবিতে সারাদেশের মত দিনাজপুর চলছে শিক্ষার্থীদের রাস্তা অবরোধ, মানববন্ধন এবং ড্রাইভারদের লাইসেন্স পরীক্ষা করে দেখা কর্মসূচী।
শ্রমিকদের হামলায় আহত আবিদ শাহরিয়ার মারুফ জানায়, সে ক্যাম্পাস থেকে আটোতে করে টিউশনি করানোর উদ্দেশ্যে বের হলে দেখেতে পারে যে শহরের সুইহারী মাইক্রোস্ট্যান্ডের সামনে টেকনিক্যাল কলেজে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের উপর চরাও হচ্ছিলো শ্রমিকরা। এমন পরিস্থিতি তিনি মুঠোফোনে ধারণ করতে গেলে শ্রমিকদের রোষানলে পড়ে। এক পর্যায়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন এবং শ্রমিকদের অফিস কক্ষে টেনে হেঁচড়ে নিয়ে গিয়ে নির্দয়ভাবে বেধড়ক পেটানো হয়। এতে ঐ শিক্ষার্থী মাথায় ও হাতে মারাত্মক জখম হয়। পরে উক্ত ধারণকৃত ভিডিও শ্রমিকরা ডিলিট করে ছেড়ে দেন।
এই খবর হাবিপ্রবির ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষার্থীদরা ক্ষুব্ধ হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের রাস্তা প্রায় রাত ৮ টা পর্যন্ত বন্ধ করে রাখে। রাতে জনগণের ও যানবাহন চলাচলের ভোগান্তি হবে বলে তারা তা ছেড়ে দেয়।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এর আগে গত বছরে হাবিপ্রবির ক্যাম্পাসের বাস, টার্মিনালের তৃপ্তি পরিবহণের সাথে সামান্য ধাক্কা লাগায় শ্রমিকরা শিক্ষার্থীদের মারধর ও অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন। পরে শিক্ষার্থীরা এর প্রতিবাদে ৫ দফা দাবী নিয়ে (এক, কলেজ মোড় থেকে ক্যাম্পাস পর্যন্ত ২ লেনের রাস্তা করা। দুই, ক্যাম্পাস গেটে ফুটওভার ব্রিজ করা। তিন, ছাত্রদের অর্ধেক ভাড়া নিশ্চিত করা। চার, গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট গুলোতে স্পীড ব্রেকার নির্মাণ করা। পাঁচ, শিক্ষার্থীদের সাথে কোন ঝামেলা হলে সেটা আগে প্রশাসন কে জানানো) মানব্বন্ধন করেন এতে শ্রমিকরা বাধা দিলে পরে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বাসে অগ্নি সংযোগ করেন।
টানা ২ দিন অবরোধের পর সমঝোতার জন্য ডিসি অফিসে দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা হয় এবং শিক্ষার্থীদের সকল দাবী মেনে নিয়েছে বলে আশ্বাস দেন। যা চলতি বছরের মাঝামাঝিতেও বাস্তবায়ন হয় নি।
তবে বরাবরের মত আবারো ডিসি অফিসে আলোচনার জন্য ডাকা হয়, তবে এবার আর আশ্বাস নয় দাবী পূরণ না হলে শিক্ষার্থীরা আবারো আন্দোলনের ফিরবেন বলে কঠোর হুঁশিয়ারি দেন।