ফকিরহাটে শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজটি ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে

মান্না দে, ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : শেখ হেলাল উদ্দীন ডিগ্রি কলেজটি খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা এবং বাগেরহাট জেলার রামপাল ও ফকিরহাট উপজেলার শুভদিয়া ইউনিয়নে পশুর নদীর অববাহিকায় ভোলা নদীর তীরে ২০০০ খ্রিষ্টাব্দে প্রায় ৭.৫০ একর ভূমির উপর প্রতিষ্ঠা লাভ করে। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে কলেজটি অত্র এলাকার শিক্ষাবিস্তারের ক্ষেত্রে ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে। সহশ্রাধিক শিক্ষার্থী বর্তমানে অধ্যয়নরত কলেজটিতে। ভৌতিক অবকাটামোও বেশ ভালো, তারপরেও শুভদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো: শহিদুল ইসলাম উদ্যোগ নিয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে কলেজে একটি অডিটরিয়াম নির্মাণের। কলেজ পরিদর্শনে এসে দেখলাম এগিয়ে চলেছে অডিটরিয়াম নির্মাণের কাজ। ইউনিয়র পরিষদের অর্থায়নে কিভাবে হচ্ছে কাজটি ? প্রশ্ন করেছিলাম শুভদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো: শহিদুল ইসলাম এর কাছে। তিনি বললেন বিষয়টা অমার কাছেও প্রথমে কঠিন মনে হয়েছিল, কিন্তু বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে যখন তিনটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কাজ শেষ করতে দেখলাম তখন আমি সাহস পেলাম কাজটিতে হাত দিতে। কলেজ অডিটরিয়াম তিন তলা হবে, চলতি অর্খবছরে নিচতলার কাজ শেষ করা হবে। ইতোমধ্যে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ খ্রি. আমাদের মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীনের একমাত্র পুত্র জনাব সারহান নাসের তন্ময় কলেজ অডিটরিয়ামের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন। যে কাজটি করতে সরকারি খরচ আসবে প্রায় ২৫.০০০০০/(পচিঁশ লক্ষ) টাকা, সেটা আমরা করবো ১২.৫০.০০০/( বারো লক্ষ পন্ছাশ হাজার) টাকায়। বরাদ্দ রেখেছি এডিবি- ৪.০০.০০০/(চ্রা লক্ষ),টিআর- ১.৫০.০০০/(এক লক্ষ পন্চাশ হাজার), কাবিটা- ৩.০০.০০০/(তিন লক্ষ), বিশেষ টিআর- ৮৬.৯৯৪/( ছিয়াশি হাজার নয়শত চুরান্নবই)এবং জেলা পরিষদ ৪.৫০.০০০/(চার লক্ষ পন্চাশ হাজার) টাকা, মোট-১৩. ৮৬.৯৯৪/(তের লক্ষ ছিয়াশি হাজার নয়শত চুরান্নবই) টাকা। আগামী অর্থ বছরে আবারো বরাদ্দ রেখে অডিটরিয়ামের কাজ শেষ করা হবে।আমার ইচ্ছা চলতি মেয়াদকালীন সময়ের মধ্যে ইউনিয়নের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভৌতিক অবকাঠামোর উন্নয়ন করা। কলেজ অধ্যক্ষ বটু গোপাল দাস বলেন, স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করলে সরকারের মুখাপেক্ষি না থেকেও প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন সম্ভব, তাছাড়া আমাদের সর্বদা পরামর্শ এবং সহযোগিতা করছেন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি খুলনা বিভাগের সেরা জনপ্রতিনিধি ও বিদ্যোৎসাহী ব্যক্তিত্ব স্বপন দাশ এবং বাগেরহাট-১ এর মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীন রয়েছেন আমাদের সঙ্গে।
পাশাপাশি তিনি কলেজের কিছু সমস্যাও তুলে ধরেন, অধ্যক্ষ বলেন, গত ২০০৯-২০১০ শিক্ষাবর্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যলয়ের পত্র স্মারক নং-০৭(খু- ৯৮০)জাতীঃ বিঃ/কঃ পঃ/১৪৩৯ তাং-৩১/০৩/২০১০ ডিগ্রি পর্যায়ে অধিভুক্তি পাওয়া যায়। বর্তমানে ডিগ্রি পর্যায়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ৩৬১ জন। পাসের হার ধারাবাহিক ভাবে প্রায় ৮০% এর উর্দ্ধে। ডিগ্রি পর্যায়ে বিধি মোতাবেক নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কর্মচারী ১৮ জন।এই দির্ঘ সময়েও ডিগ্রি পর্যায়ের শিক্ষক /কর্মচারী এমপিও ভুক্ত না হওয়ায় তাঁরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন এবং শিক্ষার মান ভীষনভাবে ব্যহত হচ্ছে। তিনি দ্রুততার সঙ্গে ডিগ্রি শিক্ষক ও কর্মচারীদের এমপিও ভুক্তির দাবী করেন। পার্শ্ববর্তি গৌরম্ভা বাজার সহ অত্র এলাকার গন মানুষের প্রানের দাবী দির্ঘদিন ধরে রুপসা গৌরম্ভা রুটে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে,যারফলে শিক্ষার্থীদের চলাচলে ভিষন সমস্যা হচ্ছে এর সমাধান জরুরি, না হলে কলেজের নিজস্ব যাতায়াতের ব্যবস্থা করা উচিৎ পাশাপাশি কলেজে অতিদ্রুততার সঙ্গে অনার্স কোর্স চালু করা হোক।