ফকিরহাটে এবার ৬৯টি মন্ডবে শারদীয় দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে

মান্না দে,ফকিরহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : শারদীয় দুর্গাপূজা হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সর্ব বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব। মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হতে আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। বাগেরহাটের ফকিরহাটে এখনও অনেক মন্দিরে প্রতিমায় রং তুলির ছোয়া পাইনি। তবে কোন কোন মন্দিরের প্রতিমায় রং তুলিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ভাস্কররা। শিল্পীদের হাতের নিপুণ ছোঁয়ায় তৈরি হচ্ছে প্রতিমা। ফকিরহাট উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে এবার মোট ৬৯টি পূজা মন্দিরে শারদীয় দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরমধ্যে মানসা কালি মন্দিরের দূর্গা মন্দির, আট্টাকী শীতলা মন্দিরের দূর্গা মন্দির ও বেতাগা মোমতলা দূর্গা মন্দির সহ ৬৯ দূর্গা মন্দিরে পূজা অনুষ্ঠিত হবে বলে উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক প্রভাষক মনোতোষ রায় কেষ্ট জানিয়েছেন। শীতলা মন্দিরের সাধারন সম্পাদক গোবিন্দ কুমার পাল জানান, ফকিরহাট উপজেলার আট্টাকী সর্ব্বজনীন শীতলা দুর্গা মন্দিরটি এই বছরও অত্যাধুনিক যান্ত্রিক দেব-দেবীর মূর্তি পাশাপাশি থাকবে দেড়শতাধিক প্রতিমা। মন্দিরে প্রতিমার বৈচিত্রতা ও ব্যবস্থাপনার কারনে ফকিরহাটে সর্ববৃহৎ সর্ববজনীন দুর্গা মন্দির হিসেবে এটি পরিচিতি লাভ করবে বলে মন্দির কমিটি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। অপরদিকে, বেতাগার মোমতলায় সার্বজনীন এই দুর্গা মন্দিরটি প্রতিবছর সর্বাধিক প্রতিমা, প্রতিমার বৈচিত্রতা ও ব্যবস্থাপনার কারনে এতঞ্চলের সর্ববৃহৎ দুর্গা মন্দির হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। মন্দির কর্তৃপক্ষের আয়োজনে এবছরও শাতাধিক প্রতিমা তৈরী করছেন। যার কারুকার্যের কাজ চলছে। এদিকে ঐতিহ্যবাহী মানসা কালি মন্দিরের দূর্গা পূজা মন্দিরের প্রতিমা তৈরী হলেও পাইনি এখনও রং তুলির ছোয়া। মন্দির কমিটি জানায়, ২/৩দিনের মধ্যে প্রতিমা রং করার কাজ শুরু হবে। এছাড়া শারদীয় দূর্গা পূজা উৎসবকে সামনে রেখে বিভিন্ন গার্মেন্টস এর দোকার, কসমেটিক্স, ছিট-কাপড় ও জুতার দোকান সহ বিভিন্ন দোকান সাজাতে ব্যবস্ত হয়ে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। তবে পূজার কেনা-বেচা তেমন একটা শুরু হয়নি বলে অনেক দোকানদার জানিয়েছে।