প্রধানমন্ত্রী যতদিন অধিষ্ঠিত থাকবেন মানুষ নির্ভয়ে স্ব স্ব ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করতে পারবেন: কেসিসি মেয়র

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র (কেসিসি) তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, ধর্ম যার যার-উৎসব সবার। সারাদেশে উৎসবমুখর পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব পালিত হচ্ছে উল্লেখ করে সিটি মেয়র বলেন, সুদুর অতীত থেকে এদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির যে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপিত হয়েছে বর্তমানে তা আরো সুদূঢ় হয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী পদে যতদিন অধিষ্ঠিত থাকবেন সকল সম্প্রদায়ের মানুষ নির্ভয়ে স্ব স্ব ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান পালন করতে পারবেন। দেশের উন্নয়ন অগ্রগতিও ত্বরান্বিত হতে থাকবে। দেশে সুষম উন্নয়নের স্বার্থে আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

সিটি মেয়র আজ সোমবার শারদীয় দুর্গোৎসব ২০১৮ উপলক্ষে মহানগরীর পূজা মন্ডপসমূহে আর্থিক অনুদান প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। সিটি মেয়র ছোট বয়রা কালিবাড়ি সার্বজনীন পূজা মন্দির প্রাঙ্গণে দুপুর ১২টায় মহানগরীর খালিশপুর ও সোনাডাঙ্গা থানা এলাকার মন্ডপসমূহের কর্মকর্তাদের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে অনুদানের অর্থ তুলে দেন। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ হতে এ অনুদান প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র আরো বলেন, শেখ হাসিনার সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড শুরু হয়েছে। এ অঞ্চলের শতকরা আশি ভাগ মানুষ এখন বিদ্যুত সুবিধা পাচ্ছে। রামপাল বিদ্যুত কেন্দ্র চালু হলে বিদ্যুত উন্নয়নে আরো একধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, বহু কাঙ্খিত পদ্মা সেতু, মোংলা-ফুলতলা রেললাইন নির্মাণের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। খুলনার আধুনিক রেল স্টেশনের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। মেয়র বলেন, বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টায় মোংলা বন্দরে কর্মচাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে এবং ইপিজেড নির্মাণের ফলে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এ অঞ্চলে বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাডেমিক ভবন নির্মাণের ফলে শিক্ষা ক্ষেত্রেও বৈপ্লবিক উন্নতি সাধিত হয়েছে।

খুলনা মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কুন্ডু, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কাজী এনায়েত হোসেন, কেসিসি’র কাউন্সিলর মোঃ আনিছুর রহমান বিশ্বাষ, শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, মোঃ মনিরুজ্জামান, এস এম খুরশিদ আহম্মেদ টোনা, শেখ মোসারাফ হোসেন, মোঃ আমিনুল ইসলাম মুন্না, মোঃ ডালিম হাওলাদার, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর শেখ আমেনা হালিম বেবী, পারভীন আক্তার, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি রজত কান্তি দাস, পরিমল দাস, সোনাডাঙ্গা থানা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বিপ্লব কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক রামচন্দ্র পোদ্দার, খালিশপুর থানা পূজা উযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক পান্নালাল চক্রবর্তী, আওয়ামীলীগ নেতা শেখ আবিদ উল্লাহ, খন্দকার বাহাউদ্দিনসহ বিভিন্ন মন্দির কমিটর কর্মকর্তা ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বেলা ১১টায় সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক নগরীর দৌলতপুরস্থ পাবলা মধ্যপাড়া সার্বজনীন পূজা মন্দিরে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে খানজাহান আলী ও দৌলতপুর থানা এলাকার মন্ডপসমূহের কর্মকর্তাদের হাতে অনুদানের অর্থ তুলে দেন।

খুলনা মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কুন্ডু, আওয়ামীলীগ নেতা নূর ইসলাম বন্দ, কেসিসি’র কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ আলী, শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর সাহিদা বেগম, সাবেক কাউন্সিলর মোঃ আব্দুল হক, দৌলতপুর থানা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি তিলক গোস্বামী, খানজাহান আলী থানা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দুলাল সরকার সহ বিভিন্ন মন্দির কমিটির কর্মকর্তা ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সকালে তালুকদার আব্দুল খালেক সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করায় তাকে নগর ভবনে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয়। সংগঠনগুলির মধ্যে খুলনা মহানগরস্থ বহিরাগত মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ সমিতি, হাজী কল্যাণ ফাউন্ডেশন, খুলনাস্থ বাগেরহাট জেলা কল্যাণ সমিতি, খুলনা মুসলিম নিকাহ ও রেজিস্ট্রার সমিতি, খুলনা সরকারি মহিলা কলেজ শিক্ষক সমিতি, দারুল কুরআন সিদ্দিকিয়া কামিল মাদরাসা শিক্ষক সমিতি, সরকারি পাইওনিয়ার কলেজ শিক্ষক সমিতি ও হেড টিচার্স ফোরাম-খুলনা উল্লেখযোগ্য।

এছাড়া বিকেলে খুলনা মেট্রোপলিটন স্টেশনারী ব্যবসায়ী সমিতি ও নিরালা আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সিটি মেয়র’কে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয়।(বিজ্ঞপ্তি)

Inline
Inline