‘পুলিশ টাকা চাইলেই আমাকে ফোন দেবেন’

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা : সাধারণ মানুষের নাগরিক সেবা দিতে জেলা পুলিশের কঠোর অবস্থান থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ।

সোমবার সকালে পুলিশ সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে জেলা পুলিশের বর্ণাঢ্য র‌্যালি শেষে শহীদ মিনারে সাংবাদিকদের দেয়া এক ব্রিফিংয়ে এ ঘোষণা দেন তিনি।

পুলিশ সুপার বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ এখন বিভিন্নভাবে তাদের কাজ সম্পন্ন করছে। সাধারণ মানুষ আমাদের সার্ভিস পাচ্ছে কি-না সেটা জানা উচিত। সেই হিসেবে এই পুলিশ সপ্তাহ। আমরা এখন পুলিশ ফোর্স না, পুলিশ সার্ভিস।

তিনি বলেন, প্রায় এক মাস আগে এই শহীদ মিনারে আমরা বলেছিলাম, আমরা জনগণকে সেবা দিতে চাই। সেজন্য হকারদের রাস্তা থেকে তুলে দিয়েছি আমরা। হকার ভাইদের ধন্যবাদ জানাই, তারা আমাদের কথা রেখেছেন। রাস্তার মধ্যে দোকানদারি, রাস্তায় গাড়ি থামিয়ে লোক তোলা এবং অবৈধ স্ট্যান্ড এসব চলবে না। এর বিরুদ্ধে পুলিশের কঠোর অবস্থান থাকবে।

এসপি হারুন বলেন, সমস্যায় পড়লেই নির্ভয়ে থানায় আসবেন। থানায় যদি জিডি করতে গেলে যদি কোনো পুলিশ সদস্য হয়রানি করে কিংবা টাকা চায় তাহলে সেখান থেকে আমাকে ফোন করবেন, বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে আমাকে জানাবেন। ওই পুলিশ সদস্য থানায় থাকবে না। থানায় গেলে মামলা কিংবা জিডি করতে কোনো হয়রানির শিকার আপনারা হবেন না। আমি সারাদিন অফিসে থাকি। আমার কোনো পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে যদি আপনাদের অভিযোগ থাকে তাহলে আমার অফিসে এসে জানাবেন। এছাড়া ৯৯৯ রয়েছে, সেখানেও আপনারা অভিযোগ জানাতে পারেন।

কোনো মাদক বিক্রেতার স্থান নারায়ণগঞ্জে থাকবে না উল্লেখ করে পুলিশ সুপার বলেন, মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী, ভূমি দস্যুদের ছাড় দেয়া হবে না। আমাদের অ্যাকশন অলরেডি শুরু হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, মানুষের কোনো কষ্ট যাতে না হয়, সেজন্য আমরা জনগণের কষ্টের উৎসগুলো খুঁজে বের করে লাঘব করব। আমরা মানুষের কষ্ট যদি কিছুটা লাঘব করতে পারি তাহলেই আমাদের স্বার্থকতা।

তিনি আরও বলেন, চাষাঢ়া মোড় থেকে সাইনবোর্ড পর্যন্ত শত শত রাস্তা কাটা রয়েছে। সবাই মনের মতো রাস্তা কেটে ইউটার্ন করা শুরু করেছেন। অথচ এই রাস্তায় মাত্র দুই থেকে তিনটা কাটা থাকার কথা। এই কাটাও যানজটের অন্যতম কারণ। আমরা এই কাটা বন্ধ করব।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. সেলিম রেজা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) মো. নূরে আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. ফারুক হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) সুবাস সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (‘ক’ অঞ্চল) মো. মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুল ইসলাম প্রমুখ।