পাকিস্তানে হামলার কারণ জানাল ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পুলওয়ামা হামলার জেরে সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে বিমান হামলা করেছে ভারত। মঙ্গলবার ভোরে ভারতীয় বিমানবাহিনী পাকিস্তানের বালাকোটে পুলওয়ামা হামলার দায়স্বীকারকারী পাকিস্তানভিত্তিক সশস্ত্র সংগঠনের ঘাঁটি লক্ষ্য করে এ হামলা চালায়।

সরকারি সূত্রের বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ভারতীয় বিমানবাহিনী পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণরেখা (লাইন অব কন্ট্রোল) পেরিয়ে পাকিস্তানের জইশ-ই-মোহাম্মদ, হিজবুল্লাহ মুজাহেদীন ও লস্কর-ই-তৈয়েবার ঘাঁটিতে বিমান হামলা চালিয়েছে।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখলে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, পুলওয়ামা হামলার পর গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে জানা যায় পাকিস্তানভিত্তিক সশস্ত্র সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ দেশের বিভিন্ন অংশে হামলার পরিকল্পনা করছে। তাছাড়া ফিদায়ে জিহাদিদের এ জন্য প্রশিক্ষণ দেয়ার কাজও কলছিল তারা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব বিজয় গোখলে আরও বলেন, ‘আসন্ন হামলার কথা বিবেচনায় রেখে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালানো খুব প্রয়োজনীয় হয়ে ওঠে। আর সে কারণেই বিমানবাহিনী এই হামলা চালিয়েছে। এই হামলার লক্ষ্য জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটি।’

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব গোখলে দাবি করেছেন, জইশ-ই-মোহাম্মদের যেসব ঘাঁটিতে হামলা চালানোর হয়েছে তার নেতৃত্বে আছেন সংগঠনটির প্রধান মাওলানা মাসুদ আজহারের জামাতা মাওলানা ইউসুফ আজহার ওরফে ওস্তাদ গৌরি।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতের কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশের গাড়ি বহরে জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলা চালালে অন্তত ৪০ জন সেনা নিহত হয়। তারপর ভারতের পক্ষ থেকে পাকিস্তানে হামলার হুমকি দেয়া হয়। সেই হামলার ১২ দিন পর পাল্টা হামলা চালালো ভারত।

বালাকোটের সেই পাহাড় চূড়ায় জইশ-ই-মোহাম্মদের সবচেয়ে বড় প্রশিক্ষণ কেন্দ্র অবস্থিত। তবে সেই স্থানটি বেসামরিক মানুষের বসতি থেকে বেশ খানিকটা দূরে বলে জানানো হয়েছে। ভারতের বিমান হামলার অন্তত ৩০০ জঙ্গি নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছে ভারত।

বিমান বাহিনীর ওই হামলায় জঙ্গি সংগঠনটির বেশ কয়েকজন নেতা নিহত হয়েছেন বলেও টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। তাছাড়া হামলায় যেন বেসামরিক মানুষ নিহত না হয় সে বিষয়টিও বিবেচনায় রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারত।