পলাশবাড়ীতে শিম চাষে কৃষকের ব্যাপক সাড়া

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধা সংবাদদাতা : পলাশবাড়ী উপজেলার কৃষকরা রবি শষ্য হিসাবে, বেছে নিয়েছে শিম চাষ। ৬ মাস মেয়াদি চাষ হয় শিম। অল্প খরচে অধিক মুনাফা হয় তাই উপজেলার শিমুলতলা সদরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষকরা ঝুকে পড়েছে শিম চাষে।

হোসেনপুর ইউনিয়নের চারজানী গ্রামের কৃষক মালেকা মিয়া, ও কেশরগাড়ী ইউনিয়নের বড় শিমূলতলা গ্রামের শিম চাষী খাসা মিয়া, ময়নুল মন্ডল, নওশা মন্ডল ও মতিয়ার রহমান জানান, একবিঘা জমিতে শিম চাষ করতে সার ঔষধসহ ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা খরচ হয়। আর বাজার ভালো হলে এবং আগাম শিম ফলাতে পারলে এক বিঘা জমি থেকে শিম বিক্রি করা যায় ৮০ হাজার থেকে এক লক্ষ টাকা। বাজার কম হলে বিঘা প্রতি শিম বিক্রি করা যায়, ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকা।

শিম চাষী হাবিব বলেন, এখন শিম পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ৩০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা। খুচরা বাজারে এখন প্রতি কেজি সিম বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা দরে। আমি দু’দিন আগে ৩০ কেজি বিক্রি করেছি ৩২০০ টাকা মণ দরে। আগাম শিম ফলাতে পেরেছি তাই এখন বেশি লাভ পাচ্ছি। তবে দাম কমলেও বিঘায় কমপক্ষে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা শিম বিক্রি হবে।

শিম চাষী মসতাজ বলেন, সিমের জমিতে নিয়মিত পরিচর্যা করতে পারলে অনেক লাভবান হওয়া যায়। তাই শসা, কপি এ গুলোর পাশাপাশি এখন সিম চাষকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

উপজেলার সদর গোয়ালপাড়া এলাকা ঘুরে দেখা গেলো, শিম চাষের বাস্তব চিত্র। এই এলাকাটা উচু হওয়ায় বন্যা আসলেও কোন সমস্যা হয়না। তাই অধিক মুনাফা পাওয়ার জন্য শসা, কালাই, ফুল কপি, বাধাঁ কপির পাশাপাশি শিম চাষে ঝুঁকে পড়েছে কৃষকরা।

পলাশবাড়ী উপজেলা সহকারী কৃষি অফিসার কৃষ্ণকুমার বলেন, এসব রবি শষ্য চাষে আমরা কৃষকদের নিয়মিত পরামর্শ ও সহেযোগিতা করে যাচ্ছি।