পর্নো তারকা স্টর্মির মামলায় খালাস পেলেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে করা মানহানির মামলায় হেরে গেলেন পর্নো তারকা স্টর্মি ড্যানিয়েলস। মামলায় পরাজয়ের কারণে ২ লাখ ৯৩ হাজার ডলার ফেরত দিতে হবে তাকে। জেমস ওটেরো নামের যুক্তরাষ্ট্রের একজন ডিস্ট্রিক্ট জজ পর্নো তারকা স্টর্মি ও তার আইনজীবীকে এই নির্দেশ দিয়েছেন।

চলতি বছরের শুরুতে মার্কিন পর্নো তারকা স্টর্মি ডেনিয়েলস প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এই মামলা করেন। প্রথম মামলায় স্টর্মি অভিযোগ করেন, ২০০৬ সালে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন ট্রাম্প। ২০০৬ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রেখেছিলেন তিনি।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের হয়ে ট্রাম্প বিজয়ী হওয়ার পর যখন একের পর এক নারী ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনা শুরু করেন, তখনই মুখ খুলেছিলেন স্টর্মি। ঘটনার পর আইনজীবী মাইকেল কোহেনের মাধ্যমে স্টর্মির মুখ বন্ধ রাখতে উদ্যোগী হন ট্রাম্প।

মুখ বন্ধ রাখতে ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের এক মাস আগে ট্রাম্প তাকে ১ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার দিয়েছিলেন। পরে স্টর্মিকে অর্থ দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করলেও এর সঙ্গে ট্রাম্প বা তার নির্বাচনী প্রচারণা দলের কোনো সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেছিলেন ট্রাম্পের দীর্ঘদিনের আইনজীবী মাইকেল কোহেন। ট্রাম্প এসব অভিযোগ অস্বীকার করলে স্টর্মির পক্ষ থেকে একটি মানহানির মামলা করা হয়।

মামলা চলাকালীন গত সপ্তাহে ট্রাম্পের আইনজীবী চার্লস হার্ডার আদালতে এই পর্নো তারকার কাছে আইনজীবীর ফি ও অন্যান্য খরচ বাবদ ৭ লাখ ৮০ হাজার ডলার ক্ষতিপূরণ বাবদ ফেরত চান। শুনানি শেষে আদালত ২ লাখ ৯৩ হাজার ডলার পরিশোধ করার জন্য স্টর্মিকে নির্দেশ দিয়েছেন। আদালতের এই নির্দেশকে প্রেসিডেন্টের ‘বিজয়’ বলে মন্তব্য করেছেন চার্লস হার্ডার