পরকীয়ায় সংসার ভাঙছে সাবেক ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ এনে সাবেক ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের সঙ্গে দাম্পত্য জীবনের ইতি টানছেন তার ভারতীয় বংশোদ্ভূত স্ত্রী মারিনা হুইলার। কিছুদিন আগেই বরিস জনসনকে ছেড়ে গিয়েছেন তিনি।

বেশ কিছু দিন আলাদা থাকার পর এই দম্পতি যৌথভাবে জানান, কয়েক মাস আগে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। তাদের চার সন্তান রয়েছে।

সম্প্রতি একটি ব্রিটিশ গণমাধ্যমে বরিসের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক নিয়ে চর্চা হয়েছিল। তারপরই এমন ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মারিনা মানবাধিকার সংক্রান্ত আইনজীবী। বরিস নিজে ব্রেক্সিটপন্থী হিসেবে গণভোটের সময়ে মেরিনার মতকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়েছিলেন।

ব্রেক্সিট নিয়ে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-র সঙ্গে মতানৈক্যের জেরে জুলাইয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদ ছাড়েন বরিস। তার পর সরকারের সমালোচনায় নানা পত্রপত্রিকায় লিখে চলেছেন তিনি। যা দেখে বিশেষজ্ঞদের ধারণা, নিজেকে ব্রিটেনের বিকল্প প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তুলে ধরতে চান তিনি।

বরিসের ব্যক্তিগত জীবন বহু বার চর্চার বিষয় হয়েছে। ২০০৪ সালে লেখিকা পেট্রোনেলা ওয়্যাটের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে বলে নিজেই স্বীকার করেন বরিস। চার বছর চলা এ সম্পর্কের সময় ওয়্যাট অন্তঃসত্ত্বা হন ও গর্ভপাত করাতে হয়। ২০০৯-এ আবার হেলেন ম্যাকিনটায়ার নামে এক শিল্প-পরামর্শদাতার সঙ্গে নাম জড়ায়। তার সন্তানের বাবাও হন। এসবের পরে টানাপড়েন চললেও শেষমেশ বরিসকে মেনে নেন মারিনা।

তবে সম্প্রতি ব্রিটিশ গণমাধ্যমে বরিসের আবার বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক সামনে আসলে তার সঙ্গে থাকতে চাননি মারিনা।