দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনে ২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধা: গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলায় দুর্বৃত্তদের দেয়া পেট্রোলের আগুনে পুড়ে গেছে তছলিম উদ্দিন বিদ্যা নিকেতন ও বকশিগঞ্জ আইডিয়াল নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়।আগুনে বিদ্যালয় দু’টির অফিস, শ্রেণি কক্ষ, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, ফটোকপি মেশিন, বই, মূল্যবান কাগজপত্র, আসবাবপত্র ও নগদ টাকাসহ অন্তত ১০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এছাড়া আগুনে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার সনদপত্র পুড়ে যাওয়ায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ। বুধবার ভোরে উপজেলার বকশিগঞ্জ বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগুন দেয়ার খবর পেয়ে ভোরেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করে।

স্থানীয়রা জানান, ভোরে হঠাৎ তছলিম উদ্দিন বিদ্যা নিকেতন ক্যাম্পাসের ভেতরে আইডিয়াল নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে আগুন দেখা যায়। মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে বিদ্যালয়ের অফিস ও শ্রেণি কক্ষে। একপর্যায়ে আগুনে টিনসেড ব্লিডিংয়ের দরজা-জানালা, চেয়ার, টেবিল, শ্রেণি কক্ষের বেঞ্চ, বই-খাতা পুড়ে যায়। এছাড়া আগুনে অফিস কক্ষে থাকা বিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ কাগজ, জমির দলিল, নগদ এক লাখ টাকা ও প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার মূল সনদপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে আসার আগেই স্থানীয় লোকজন চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিভিয়ে ফেলে।

বিদ্যালয় পরিচালক সাবেক ইউপি সদস্য মো. রুহুল আমিন বলেন, স্থানীয়ভাবে আগুন নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও রক্ষা করা যায়নি আসবাবপত্র, দলিল, মুল্যবান কাগজপত্র, কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ফটোকপি মেশিন ও নগদ এক লাখ টাকা। আগুনে পুড়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

এছাড়া আগুনে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার (২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত) শত শত শিক্ষার্থীর মূল সনদপত্র পুড়ে গেছে। এতে করে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, গ্রামীণ জনপদে শিক্ষা প্রসারের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয় বিদ্যালয় দু’টি। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই প্রথম শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত আবাসিক-অনাবাসিকের শিক্ষার্থীর ভালো ফলাফল করায় সুনাম বাড়ছে। দিন দিন শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েই চলছে।

Inline
Inline