‘দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে কাজ করছি’

খুলনা সংবাদদাতা : ‘দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছি। বস্তিবাসীদের কল্যাণে ইতোমধ্যে সিডিসি’র আওতায় অনেক বাস্তবভিত্তিক কর্মকান্ড সম্পন্ন হয়েছে এবং নতুন করে ‘প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবন মান উন্নয়ন’ প্রকল্প নামে আরো একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে খুলনায় দারিদ্র বিমোচনের ক্ষেত্রে আশানুরূপ সাফল্য অর্জিত হবে।’

আজ (বৃহস্পতিবার) বেলা ১১টায় খুলনা নগরীর একটি অভিজাত হোটেলে দরিদ্র বান্ধব নগর উন্নয়ন : অংশীজন কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

খুলনা সিটি কর্পোরেশন, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা পাওয়ার এন্ড পার্টিসিপেশন রিচার্স সেন্টার (পিপিআরসি) ও আইপিই গ্লোবাল যৌথভাবে এ কর্মশালার আয়োজন করে। কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন পিপিআরসি’র নির্বাহী চেয়ারম্যান সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শিক্ষা ও বাণিজ্য উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান।

সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক আরো বলেন, ‘বর্তমান সরকার দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্যে যুগান্তাকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করায় দেশে অভূতপূর্ব উন্নতি সাধিত হচ্ছে। খুলনা নগরীর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য, শিক্ষাসহ সকল নাগরিক সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে।’ গ্রামের মানুষের শহরমুখী হওয়ার প্রবণতা রোধে সরকার শহরের আদলে গ্রামকেও গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বলে সিটি মেয়র উল্লেখ করেন।

সভাপতির বক্তৃতায় সাবেক উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে নগর সরকার প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, নগর কাঠামোর আর্থিক ভীত শক্তিশালী করতে হবে। তিনি বলেন, দেশে আবার পাটের সুদিন ফিরে আসছে। এ জন্য সুষ্ঠু কর্মপরিকল্পনা দরকার।

কর্মশালায় ভারতের দিল্লি থেকে আগত আইপিই গ্লোবাল-এর পরিচালক শ্রীপর্ণ আয়ার, পিপিআরসি’র পরিচালক সৈয়দ জিয়া উদ্দিন আহমেদ, সাবেক অতিরিক্ত সচিব মো: আব্দুল ওয়াজেদ, সাবেক যুগ্ম সচিব মো: আমিনুল ইসলাম, কেসিসি’র প্যানেল মেয়র মো: আমিনুল ইসলাম মুন্না, কাউন্সিলর শেখ মো: গাউসুল আযম, মো: সাইফুল ইসলাম, শেখ মোহাম্মদ আলী, শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স, মো: ডালিম হাওলাদার, শেখ মোসারাফ হোসেন, মো: হাফিজুর রহমান, আশফাকুর রহমান কাকন, ফকির মো: সাইফুল ইসলাম মো: আরিফ হোসেন মিঠু, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মনিরা আক্তার, সাহিদা বেগম, রহিমা আক্তার হেনা, পারভীন আক্তার, শেখ আমেনা হালিম বেবী, মাহমুদা বেগম, মাজেদা খাতুন, লুৎফুন নেছা লুৎফাসহ কেসিসি’র কর্মকর্তা-কর্মচারী, সিডিসি’র নেতৃবৃন্দ, এনজিও প্রতিনিধি ও নগরীর গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকাল ১০টায় কেসিসি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক নগরীর বানরগাতি এলাকায় শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ প্রাঙ্গণে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাহিত্য-সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন বিশিষ্ট শিল্পপতি আলহাজ্ব আব্দুল জব্বার মোল্লা, এম এ সালাম, কবি মুর্শিদা আক্তার রনি, জেলা পরিষদের সদস্য চৗধুরী রায়হান ফরিদ, আলহাজ্ব শেখ আবেদ আলী ও শেখ আব্দুর রশিদ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন কলেজের অধ্যক্ষ মাধব চন্দ্র রায় ও অধ্যাপক শেখ দিদারুল আলম।

অন্যান্যের মধ্যে কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সদস্য শেখ জামাল উদ্দিন, ২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মুন্সী আইয়ুব আলী, সাধারণ সম্পাদক সরদার আব্দুল হালিম, যুবলীগ নেতা শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ, অধ্যাপক নিমাই চন্দ্র বাড়ৈসহ কলেজের শিক্ষক, ছাত্র ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের উন্নয়নে এবং কলেজটি সরকারিকরণের উত্থাপিত দাবির প্রেক্ষিতে সম্ভব সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।