তেলের খনি নয়, সবচেয়ে বড় সম্পদ হলো জ্ঞান

নিজস্ব সংবাদদাতা : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেছেন, যুদ্ধাস্ত্রের কারখানা বা তেলের খনি নয়, সবচেয়ে বড় সম্পদ হলো জ্ঞান। এই জ্ঞান অর্জনের দিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে।

তিনি বলেন, অর্জিত জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে বিএসএমএমইউকে চিকিৎসাসেবা, চিকিৎসাশিক্ষা ও গবেষণায় বিশ্বমানে নিয়ে যেতে হবে। দেশের সকল মেডিকেল ও হাসপাতালে আসা রোগীদের দরদী মন নিয়ে যথাযথ চিকিৎসাসেবা প্রদানের মাধ্যমে তাদের মুখে হাসি ফোটাতে হবে।

শনিবার বিএসএমএমইউ এ-ব্লকের অডিটোরিয়ামে মেডিকেল শিক্ষায় উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের লক্ষ্যে মার্চ’২০১৯ সেশনে ভর্তিকৃত রেসিডেন্সি শিক্ষার্থীদের বরণ ও পরিচিতি অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মো. জুলফিকার রহমান খান, মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. জিলন মিঞা সরকার, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মো. গাজী শামীম হাসান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ, বিভিন্ন বিভাগের ডিনসহ চেয়ারম্যান ও ছাত্রছাত্রী উপস্থিত ছিলেন।

দেশের ২৮টি মেডিকেল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনুষদের ৫৭টি বিভাগের ১৩ জন বিদেশি শিক্ষার্থীসহ এক হাজার ৯৪ জন শিক্ষার্থী, ডিন, কোর্স পরিচালক, বিএসএমএমইউ অধিভুক্ত কলেজের প্রধানগণ এবং এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান ও শিক্ষকবৃন্দ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

এতে ডিনবৃন্দ নিজ নিজ অনুষদের ছাত্রছাত্রীদের পরিচয় করিয়ে দেন। দেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে রয়েছে সার্জারি অনুষদের ৪৪২ জন, বেসিক সায়েন্স ও প্যারা ক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদের ১১৮ জন, মেডিসিন অনুষদের ৩৬৩ জন, ডেন্টাল অনুষদের ৪৬ জন এবং শিশু অনুষদের ১১২ জন। তারা সবাই এমবিবিএস, বিডিএস ডিগ্রি অর্জনকারী চিকিৎসক।