তৃতীয় দফা রিমান্ড শেষে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা সাখাওয়াত কারাগারে

বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম লস্কর সোহেল রানা আসামিকে কারাগারে পাঠানোর এ আদেশ দেন। রমনা থানার তথ্য-প্রযুক্তি আইনে এ মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

তৃতীয় দফা রিমান্ড শেষে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা মো. সাখাওয়াত হোসেন ওরফে রনি ওরফে রাতুলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

এদিন তৃতীয় দফায় একদিনের রিমান্ড শেষে আসামিকে আদালতে হাজির করে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

অপরদিকে আসামিপক্ষে জামিন আবেদন করা হয়। আদালত আসামির জামিন শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করে আসামিকে কারাগারে পাঠানোর ওই আদেশ দেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী জায়েদুর রহমান যুগান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

আদালতকে তদন্তকারী কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আসামি সাখাওয়াতকে রিমান্ডে নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। কোনো সংস্কার আন্দোলনের নামে আসামি বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে গুজব সৃষ্টি করে দেশে অরাজগতা তৈরি করছে। আসামি জামিন পেলে পলাতক হতে পারে। এছাড়া তদন্তের স্বার্থে আসামিকে আবারও রিমান্ডে নেয়া প্রয়োজন হতে পারে।

আদালত সূত্র জানায়, কোটা আন্দোলনের সময় পুলিশের কর্তব্যকাজে বাধা দেয়ার মামলায় ৮ আগস্ট আসামি সাখাওয়াতকে আদালতে হাজির করলে আদালত আসামির একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ওই মামলায় রিমান্ড শেষে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের এ মামলায় ১০ আগস্ট আসামিকে আদালতে হাজির করলে আসামির দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এরপর ১৩ আগস্ট তৃতীয় দফায় আসামির একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

তথ্য-প্রযুক্তি আইনের এ মামলাটি পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজমের উপপরিদর্শক মো. সজীবুজ্জামান তদন্ত করছেন।