তাহিরপুরে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গৃহবধুকে জখম

অনিমেশ দাস, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে কুলসুমা বেগম নামের এক গৃহবধুকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। আহত কুলসুমা উপজেলা সদর ইউনিয়নের ভাটি তাহিরপুর গ্রামের ছমির উদ্দিনের স্ত্রী। আশংকাজনক অবস্থায় আহত গৃহবধুকে সিলেট এমএজি ওসমাসী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে এ ব্যাপারে আহত গৃহবধুর ছেলে পাভেল বাদী হয়ে তাহিরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ভাটি তাহিরপুর গ্রামের মৃত বশির মিয়ার ছেলে মোশারফ হোসেন বৃহস্পতিবার রাতে পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিশোধ নিতে গৃহবধু কুলসুমা’র বসত বাড়িতে ঢুকে রামদা দিয়ে মাথায় কুঁপিয়ে মৃত ভেবে ফেলে রেখে যায়।

পরিবারের লোকজন ও প্রতিবেশীরা রক্তার্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় রাতেই কুলসুমাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

তাহিরপুর থানার ওসি শ্রী নন্দন কান্তি ধর মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।