তালায় বে-সরকারী ব্যাংক না থাকায় ব্যাবসা-বানিজ্যে স্থবিরতা

এস এ হাসান আলী বাচ্চু, তালা (সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি: তালা উপজেলা সদরে কোন বেসরকারী ব্যাংক না থাকায় ব্যাবসা বানিজ্যসহ সার্বিক উন্নয়ন বঞ্চিত হচ্ছে এ অঞ্চলের মানুষ। ফলে তালার সার্বিক উন্নয়নসহ ব্যাবসা বানিজ্যের প্রসারে অতিদ্রুত বেসরকারী ব্যাংক স্থাপন জরুরী বলে মনে করঠেন ভুক্তভোগি মানুষ।
সুত্রে প্রকাশ,সাতক্ষীরা জেলার মধ্যে তালা উপজেলা একটি বর্ধিঞ্চু ও জনবহুল উপজেলা। ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাংস্কৃতিক ও আর্থ সামাজিক দিক দিয়েও তালা উপজেলার অবস্থান জেলার মধ্যে শীর্ষে। মহাকবি মাইকেল মধুসুধন দত্ত মামার বাড়ি, অবিভক্ত বাংলার ডেপুটি স্পিকার সৈয়দ জালাল উদ্দীন হাসেমী, বড়পীর জয়নুদ্দীন শাহ, কবি সিকানদার আবু জাফরসহ অসংখ্য নামী দামী ব্যক্তিদের জন্ম এই তালা উপজেলায়। এরশাদ সরকারের আমলে তালা উপজেলা থেকে আন্তর্জাতিক সাংবাদিক সৈয়দ দিদার বখতকে তথ্য প্রতিমন্ত্রী মনোনীত করা হয়। তৎকালিন সময়ে তালা কলেজ, তালা বিদে উচ্চ বিদ্যালয় ও তালা শহীদ আলি আহম্মদ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়কে একই সাথে জাতীয়করন করা হয়। তালা উপজেলার জাতপুর বাজারে প্রায় ৫০টির মতো রাইচ প্রসেসিং মিল রয়েছে। যেগুলো থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে লক্ষ লক্ষ টন চাউল পাঠানো হয়।তালা উপজেলা শহরে রয়েছে বড় ধরনের কাঁচা মালের হাট, সপ্তাহের ৫ দিন এই হাটে লক্ষ লক্ষ টাকা কেনা বেচা হয়। উপশহরে ছোট বড় মিলে এক হাজারের বেশী ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। কিন্ত পুঁজি সংকটের কারনে এসকল ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান প্রসার লাভ করতে পারছেনা। তালা উপজেলা সদরে সোনালী, কৃষি ও জনতা ব্যাংকের মতো তপশীলি ব্যাংক থাকলেও লোন প্রাপ্তি প্রায় দু:সাধ্য হওয়ায় ব্যাবসা বানিজ্যের উন্নয়নে এগুলি কোন গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখেতে পারছে না। ফলে ব্যাবসায়িরা বাধ্য হয়েই পাশ্ববর্তি পাইকগাছা, কপিলমুনি, চুকনগর সহ সাতক্ষীরা জেলা শহর থেকে লোন নিতে বাধ্য হচ্ছেন।
এ বিষয়ে তালার বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী জানান,আমাদের তালাতে কোন বে-সরকারী কোন ব্যাংক না থাকায় দারুণ বিপাকে পরতে হয় । ব্যাবসাকে প্রসারিত করতে পারছি না । দেখেন আপনারা প্রত্রিকায় প্রকাশ করে একটি বে-সরকারী ব্যাংক আনতে পারলে তালা উপজেলা খুলনা বিভাগের ভিতরে ব্যাবসায়ী দিক থেকে বড় একটা জায়গা দখল করে নেবে ।