তালায় নিষিদ্ধ গাইডবই বাজারজাত করতে তৎপরতা!

এস এম হাসান আলী বাচ্চু,তালা(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি: সৃজনশীল শিক্ষা ব্যাবস্থাকে বাস্তবে রুপ দিতে সরকার গাইড বই বিপনন ও কোচিং বানিজ্য নিষিদ্ধ করলেও তালা উপজেলার এক শ্রেনীর শিক্ষা ব্যাবসায়ি শিক্ষক ও শিক্ষক নেতারা নিষিদ্ধ গাইড বই বাজারজাত করতে বিভিন্ন প্রকাশনীর সাথে ইতোমধ্যে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মর্মে খবর ছড়িয়ে পড়েছে। সাথে সাথে কোচিং ব্যাবসা খুলে জমজমাট ব্যাবসা চালানোর জোর প্রস্ততি নিচ্ছেন বলে জানাগেছে।
সুত্রে প্রকাশ,তালা উপজেলার ৬৯ টি মাধ্যমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহে সরকার ঘোষিত নিষিদ্ধ গাইড বই বাজারজাত করার প্রক্রিয়া হিসেবে ইতোমধ্যে জেলা শহরে নিম্ন মানের বিভিন্ন প্রকাশনীর সাথে উপজেলার কতিপয় শিক্ষক নেতা ও কোচিং ব্যাবসায় জড়িত শিক্ষকদের কয়েকদফা গোপন বৈঠকের পর স্থানীয় বিভিন্ন বইয়ের দোকানে গোপনে তালিকা দিয়ে চুক্তিবদ্ধ ওই সকল নিম্ন মানের প্রকাশনীর গাইড বই তুলতে বলেছেন বলে জানাগেছে। ফলে এবছরও কোমলমতি শিক্ষার্থীরা সৃজনশীল শিক্ষা ব্যাবস্থার পরিবর্তে নিম্ন মানের গাইড বই পড়ে পূথিগত বিদ্যার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে বলে আশংকা করছেন অবিভাবকরা। অন্যদিকে সরকার কোচিং বানিজ্য কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করলেও এক শ্রেনীর শিক্ষা ব্যাবসায়িরা সরকারের নির্দেশের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে বছরের পর বছর তালা উপশহরে স্কুল কলেজের পাশে প্রকাশ্যে কোচিং সেন্টার খুলে রমরমা ব্যাবসা চালিয়ে আসছেন । চলতি শিক্ষা বর্ষেও দু’এক দিনের মধ্যেই তারা পুরোদমে কোচিং ব্যাবসা শুরু করবেন বলে শোনা যাচ্ছে। স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষার্থী ও অবিভাবকরা জানান, সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাধারে ১০/১২ বছর, কোন কোন ক্ষেত্রে তারও বেশী সময় চাকুরী করায় তারা স্থানীয়ভাবে শক্তিশালী হয়ে উঠায় এসকল অনৈতিক কর্মকান্ড তারা প্রকাশ্যে করলেও সরকারের সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ এদিকে কোন নজর দেন না।
অভিযোগে আরো জানাযায়, ওই সকল কোচিং সেন্টারে না পড়লে মেধাবী শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় কম নাম্বার দিয়ে দাবিয়ে রাখা হয়। কোন অবিভাবক প্রতিবাদ করলে তার সন্তানের প্রতি পড়ে ওই সকল শিক্ষকের কুনজর। ফলে এক প্রকার বাধ্য হয়েই অবিভাবকরা এসকল অনৈতিক কর্মকান্ডে সমর্থন দিয়ে আসছেন।
এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আতিয়ার রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নে উপজেলা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সর্বদা সচেষ্ট থাকবে।

Inline
Inline