তনু হত্যার বিচার চাই

সায়মা জাহান: সোহাগী জাহান তনু, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। অলিপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী ইয়ার হোসেনের মেয়ে।
আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে সোহাগী অলিপুরেই এক বাসায় টিউশনি করতেন। ঊনিশ বছর বয়সী এই মেয়েটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে আর হত্যার ঘটনা ঘটেছে খোদ সেনানিবাসে !

কারো মুখে উচ্চবাচ্য নেই। বড় পত্রিকাতেও কিছু সংবাদ নেই। ক্যান্টনমেন্টের মত স্থানে নিরাপদ নয়, ধর্ষণ করার পর হত্যা, এটি কি এতই সহজ একটি ব্যাপার ? একটি সমাজ, একটি রাষ্ট্র ঠিক কোন পর্যায়ে গেলে এ ধরণের ভয়ংকর জঘন্য অপরাধগুলো ডাল ভাত হয়ে যায়, জানিনা।
আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে সোহাগী অলিপুরেই এক বাসায় টিউশনি করতেন। ঊনিশ বছর বয়সী এই মেয়েটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে আর হত্যার ঘটনা ঘটেছে খোদ সেনানিবাসে !

কারো মুখে উচ্চবাচ্য নেই। বড় পত্রিকাতেও কিছু সংবাদ নেই। ক্যান্টনমেন্টের মত স্থানে নিরাপদ নয়, ধর্ষণ করার পর হত্যা, এটি কি এতই সহজ একটি ব্যাপার ? একটি সমাজ, একটি রাষ্ট্র ঠিক কোন পর্যায়ে গেলে এ ধরণের ভয়ংকর জঘন্য অপরাধগুলো ডাল ভাত হয়ে যায়, জানিনা।
একটি দেশ চেতনার ব্যারোমিটারে পারদের উচ্চতা কতটা হাই থাকলে এইসব অপরাধী নিয়ে কথা বলা নিষেধ ?  নাকি এই মেয়ে হিজাবী দেখে কথা বলা যাবেনা ? সংখ্যালঘু কেউ হলে এতক্ষনে ফেইসবুক আর নিউজ পেপারগুলো প্রতিবাদের তুবড়ি ছুটিয়ে দিতো। সোহাগীকে নিয়ে কিছু নেই কেন ? এই কিশোরী মেয়েটির জীবন কি জীবন না ? তার কি স্বপ্ন ছিলোনা ? সুশীল সমাজ ও আম জনতা জবাব দেবেন কি ?