ঢাকা উত্তরে তাবিথকেই ধানের শীষ দিলেন খালেদা

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে শেষমেশ তাবিথ আউয়ালকেই বেছে নিল বিএনপি। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারির ভোটে তিনিই ধানের শীষ প্রতীকে লড়বেন।

সোমবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শেষে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয় দলের পক্ষ থেকে।

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়ার পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তাবিথের নাম ঘোষণা করেন। তাকে বেছে নেওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে ফখরুল বলেন, ‘পাঁচজন প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন, তাদের সবাই যোগ্য। তবে আমরা মনে করি, এই নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য সে (তাবিথ) যোগ্য ক্যান্ডিডেট।’

মনোনয়ন পাওয়ার পর তাবিথ বলেন, শিগগিরই ইশতেহার ঠিক করে গণমাধ্যমের সামনে আসবেন তিনি।

মেয়র আনিসুল হকের ‍মৃত্যুর পর ভোটের আলোচনার শুরু থেকেই তাবিথকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে দেখা হচ্ছিল। তবে গত কয়েকদিন ধরে বিএনপির বিশেষ বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন ভোটের লড়াইয়ে নামার ইচ্ছা প্রকাশ করার পর কে হয় বিএনপির প্রার্থী তা নিয়ে নানা জল্পনা কল্পনা তৈরি জয়।

এই নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হতে দলের মনোনয়ন ফরম কিনেছিলেন মোট পাঁচ জন। তাবিথ ও রিপন ছাড়া অন্যরা হলেন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীর সাবেক সংসদ সদস্য আখতারুজ্জামান, মালয়েশিয়ায় পলাতক ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম এবং বিএনপির সহ-প্রকাশনা সম্পাদক শাকিল ওয়াহেদ।

এদের মধ্যে আজ চারজনের সাক্ষাৎকার নেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। আর বিদেশে অবস্থান করা কাইয়ুম আসতে পারেননি।

তাবিথ আউয়াল বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য। তার বাবা ধনকুবের ব্যবসায়ী আবদুল আউয়াল মিণ্টু বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা।

২০১৫ সালের এপ্রিলের ভোটে মিণ্টকেই প্রথমে প্রার্থী করেছিল বিএনপি। কিন্তু আইনি জটিলতায় তার প্রার্থিতা বাতিল হয়। পরে তার ছেলে তাবিথকে সমর্থন দেয় দলটি।

ওই নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হয়নি। তবে ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আনিসুল হকের মৃত্যুতে ফাঁকা হওয়া মেয়র পদ পূরণে ভোট হবে দলীয় প্রতীকে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এখনও তাদের প্রার্থী ঘোষণা করেনি। মঙ্গলবার দলের স্থানীয় সরকার বিষয়ক মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠকে দলটির প্রার্থিতা চূড়ান্ত হওয়ার কথা আছে।

ফেব্রুয়ারির শেষ দিকের ভোটকে সামনে রেখে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে আগামী ১৮ জানুয়ারির মধ্যে।